• নভেম্বর ২৩, ২০১৮
  • বিজ্ঞপ্তি
  • 22
নির্বাচন কারো কাছে উৎসবের ও কারো কাছে বিপদের বার্তা নিয়ে আসে

নিউজ ডেস্কঃ বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট রানা দাস গুপ্ত বলেছেন, আসন্ন নির্বাচনের মধ্য দিয়ে বাংলাদেশ এক ক্রান্তিকাল অতিক্রম করছে। এই নির্বাচন কারো কারো কাছে উৎসবের আমেজ নিয়ে এলেও, কারো কারো কাছে বিপদের বার্তা নিয়ে আসে। এ থেকে পরিত্রাণ পেতে বাংলাদেশ নির্বাচন কমিশন, সরকার ও আইনশৃঙ্খলা বাহিনীকে দায়িত্ব নিতে হবে।

শুক্রবার (২৩ নভেম্বর) দুপুরে সিলেট জেলা পরিষদ মিলনায়তনে বাংলাদেশ হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদ সিলেট বিভাগীয় কমিটি আয়োজিত প্রতিনিধি সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্য রাখতে গিয়ে একথা বলেন তিনি।

সিলেট বিভাগীয় সমন্বয় কমিটির সভাপতি এডভোকেট মৃত্যুঞ্জয় ধর ভোলার সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক প্রদীপ কুমার দেবের পরিচালনায় আয়োজিত বিভাগীয় প্রতিনিধি সভায় তিনি আরো বলেন, ৭১ সালে আমরা বাঙালী হিসেবে স্বাধীনতার জন্য লড়াই করেছি। ৪৮ বছর পর যে বৈপরিত্য দেখছি এতে ভবিষ্যতের বাংলাদেশকে কোন দিকে নিয়ে যাবে তা বলার সময় এখনও আসেনি। আমরা সংখ্যালঘুরা মুক্তিযুদ্ধের চেতনা লালন করি। দেশের স্বাধীনতার ইশতেহারে বলা হয়েছিল দেশের সকল নাগরিকের সামাজিক মর্যাদা প্রতিষ্ঠিত হবে। আজকের বাংলাদেশ মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ নয়, বঙ্গবন্ধুর বাংলাদেশও নয় উলে­খ করে তিনি মুক্তিযুদ্ধের বাংলাদেশ প্রতিষ্ঠা করতে সকলের প্রতি আহবান জানান।
এদেশের সংখ্যালঘুরা অগ্রগতি ও প্রগতির ধারার বাহিরে গিয়ে অপশক্তির বিরুদ্ধে আপোষ করবে না। সংগঠনের ৭ দফা ও ৫ দফা দাবী আদায়ের লক্ষ্যে আয়োজিত সমাবেশে তিনি আরো বলেন, জাতীয় সংসদ নির্বাচনে আগামীতে সংখ্যালঘুদের জন্য অন্তত ৬০টি আসন বরাদ্দ ও সংখ্যালঘুদের বিরুদ্ধে অবস্থানকারী সংসদ সদস্যদের আসন্ন সংসদে মনোনয়ন না দেওয়ার জন্য রাজনৈতিক দলগুলোর প্রতি দাবী জানান তিনি।

মুক্তিযুদ্ধের চেতনা, মূল্যবোধ, প্রতিষ্ঠার লড়াইয়ে বিচ্যুত হওয়া যাবে না। এটা আমাদের চেতনার লড়াই উলে­খ করে তিনি- সমঅধিকার ও সমমর্যাদা প্রতিষ্ঠার জন্য সবাইকে একযোগে কাজ করতে হবে। সা¤প্রদায়িক সহিংসতাকারি শক্তির বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে দেশের প্রগতিশীল রাজনৈতিক নেতৃবৃন্দকে ঐক্যবদ্ধ করে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে নেতাকর্মীদের প্রতি আহŸান জানিয়ে বেশ কিছু নির্দেশনা দেন তিনি।

বিশেষ অতিথির বক্তব্যে হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক জয়ন্ত কুমার দেব- নির্বাচনকে কেন্দ্র করে দেশে সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতন-নিপীড়ন আর হতে দেওয়া হবে না উলে­খ করে জমি-বাড়ি ও মন্দির দখলকারীদের ভোট না দিতে আহবান জানিয়ে বলেন, ধর্ম-নিরপেক্ষ অস¤প্রদায়ক মানুষকে আপনারা মনোনয়ন দিন। সংখ্যালঘুদের উপর নির্যাতন হলে আমরা এর বিরুদ্ধে শুধু প্রতিবাদ নয়, এবার প্রতিরোধ গড়ে তুলবো। ৭৫’র পর যে সা¤প্রদায়িক গোষ্ঠী বাংলাদেশে প্রতিষ্ঠিত হয়েছিল তাদেরকে সংখ্যালঘুরা ভোট দেবে না বলেও উলে­খ করেন তিনি।

সভায় স্বাগত বক্তব্য রাখেন হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের সিলেট জেলা শাখার সাধারণ সম্পাদক এডভোকেট প্রদীপ ভট্টাচার্য্য।

বক্তব্য রাখেন হিন্দু-বৌদ্ধ-খ্রীষ্টান ঐক্য পরিষদের কেন্দ্রীয় উপদেষ্টা বিরাজ মাধব চক্রবর্তী, জেলা মুক্তিযোদ্ধা কমান্ডার সুব্রত চক্রবর্তী জুয়েল, দীপক ঘোষ, আশু রঞ্জন দাস, এডভোকেট মুরালী ধর, নিরেশ দাস, এডভোকেট বিশ্বজিত চক্রবর্তী, রামেন্দ্র বড়–য়া, এডভোকেট নিরঞ্জন দে, রজত কান্তি গুপ্ত, উত্তম দত্ত, সুমন ভট্টাচার্য্য, চয়ন পাল, শ্যামল দাস, ইউপি চেয়ারম্যান নকুল চন্দ্র দাস, মুক্তিযোদ্ধা সুবল চন্দ্র পাল, নিরঞ্জন দেব, উত্তম কুমার পাল, ডা. পবিত্র বণিক, জুড়ি উপজেলা ভাইস চেয়ারম্যান কিশোর রায় চৌধুরী, রাজিব রায়, হাজং চ্যাটার্জী, অনুপম পুরকায়স্থ, এডভোকেট অনুপ কুমার ধর, ডিডি রুমু, রেফান্স পিলিপ বিশ্বাস প্রমুখ।

পবিত্র গীতা পাঠ করেন বিবেকানন্দ সমাজপতি, বাইবেল পাঠ করেন পিস্টার পিলিপ সমাদ্দার ও ত্রিপিটক পাঠ করেন রামেন্দ্র বড়ুয়া।