• ডিসেম্বর ১২, ২০১৮
  • রাজনীতি
  • 54
ভোটই অস্ত্র, উসকানিতে পা দেবেন না : মির্জা ফখরুল

নিউজ ডেস্ক: বিএনপির মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, ‘একটাই অস্ত্র আমাদের হাতে আছে, জনগণের হাতে আছে। আমাদের তো বন্দুক-পিস্তল নাই। আমরা ওই ভোট দিয়ে সরকার পরিবর্তন করতে পারব। এরা ভোট চুরি করার চেষ্টা করবে। সেই ভোট যেন চুরি করতে না পারে, তার জন্য কিন্তু আপনাদের পাহারা দিতে হবে।’

আজ বুধবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ঠাকুরগাঁও-১ আসনের মোহাম্মদপুর, নারগুন ও জগন্নাথপুর ইউনিয়নে ১৩টি পথসভা করেন মির্জা ফখরুল। সভাগুলোতে তিনি এসব কথা বলেন।

এছাড়া হামলার মতো কোনো উসকানিতে পা না দিতেও আহ্বান জানান মির্জা ফখরুল। কর্মীদের উদ্দেশে তিনি বলেন, ‘আর আপনাদের আরেকটা অনুরোধ করব, সবাই শান্ত থাকবেন, ওদের কোনো উসকানিতে পা দেবেন না। ওরা সব সময় উসকানি দেওয়ার চেষ্টা করে। সেই উসকানিতে কেউ পা দেবেন না। আপনারা এইভাবে শান্তিপূর্ণ থেকে ৩০ তারিখে যেন আমরা সবাই ধানের শীষে ভোট দিতে পারি।’

‘গ্রেপ্তার করা হয়েছে, আটক করা হয়েছে। আমরা সেগুলো পার হয়ে, উপেক্ষা করে, আমরা এই নির্বাচনে আসছি। এই নির্বাচনেও আমাদের সমান অধিকার নাই। আমরা স্বাভাবিক নির্বাচনে যে রকম কাজ করতে পারি, সেভাবে আমরা কাজ করতে পারছি না। আপনারা শুনেছেন যে, কালকেও আমাদের গাড়িতে হামলা হয়েছে। তারা চেষ্টা করবে, আমাদের এসব উসকানি দিয়ে বিভিন্ন সমস্যা তৈরি করতে। তারা সন্ত্রাস করছে, আমরা সন্ত্রাস করব না। আমরা শান্তির মধ্য দিয়ে আমাদের জনগণের কাছে যাচ্ছি।’

এসময় ধানের শীষে ভোট চেয়ে মির্জা ফখরুল আরো বলেন, ‘মাস্টারি করেছি তো, আমার ছাত্র এখানে অনেক। সব জায়গায়। সারা দেশে আমাকে কাজ করতে হয়। আর গত ১২ বছর ধরে, আপনারা মালিক দেশের। যদি একটা দিন সময় পান, ৩০ তারিখে আপনারা ধানের শীষে ভোট দেবেন। আপনারা আমাকে দোয়া করবেন।’

ক্ষমতায় গেলে নানা উন্নয়নের আশ্বাস জানিয়ে বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘যুবক ছেলে যারা বেকার আছে, তাদের আমরা চাকরি দেওয়ার ব্যবস্থা করব। যাদেরক চাকরি দিতে পারব না, তাদের আমরা ভাতা দেব। বেকার ভাতা দেওয়া হবে, টাকা দেওয়া হবে। যারা শিক্ষিত মেয়ে আছে, তাদের কর্মসংস্থান করা হবে। আপনারা সবাই আমাকে জানেন, আমি সব সময় এখন আপনাদের কাছে আসতে পারি না। যে দায়িত্ব আমার ওপরে পড়ছে, সারা দেশ আমাকে ঘুরতে হয়। আমাদের যে ইসলামিক দলগুলো এবং আপনারা যারা বিএনপির সঙ্গে আছেন, এক হয়ে আছেন।’