• জানুয়ারি ২৭, ২০১৯
  • জাতীয়
  • 13
হাইস্পিড ট্রেনে ৫৭ মিনিটে ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম: রেলমন্ত্রী

নিউজ ডেস্ক: ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে ‘হাইস্পিড ট্রেন’ চালুর সম্ভাব্যতা যাচাইয়ের প্রাথমিক কাজ শেষ হয়েছে জানিয়ে রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন বলেছেন, এ ট্রেনে মাত্র ৫৭ মিনিটেই ঢাকা থেকে চট্টগ্রাম আসা যাবে।

রবিবার (২৭ জানুয়ারি) রেলওয়ের পূর্বাঞ্চলের সদর দপ্তর সিআরবিতে জিএম সম্মেলন কক্ষে ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের সঙ্গে মতবিনিময় সভায় এ কথা বলেন রেলমন্ত্রী।

হাইস্পিড ট্রেন প্রসঙ্গে মন্ত্রী বলেন, ‘প্রাথমিক স্টাডি রিপোর্ট আমার কাছে উপস্থাপন করা হয়েছে। এতে উনারা দেখিয়েছেন যে, এই ট্রেন চালু হলে বিরতি দিয়ে ৬৯ মিনিটে ঢাকা থেকে চট্টগ্রামে আসা যাবে। আর বিরতি না দিলে ৫৭ মিনিটে পৌঁছানো যাবে। তবে এটার জন্য আলাদা লাইন তৈরি করতে হবে। ঢাকা থেকে নারায়ণগঞ্জ, কুমিল্লা, ফেনী হয়ে এই ট্রেন সরাসরি চট্টগ্রামে আসবে।’

নূরুল ইসলাম সুজন বলেন, চট্টগ্রামের দোহাজারী-কক্সবাজার-ঘুমধুম রেললাইন প্রকল্পটি ট্রান্স এশিয়ার সঙ্গে যুক্ত হয়ে চীন, মালয়েশিয়া ও থাইল্যান্ড পর্যন্ত সম্প্রসারণ করা হবে।

দোহাজারি-ঘুমধুম রেললাইন স্থাপন প্রকল্পের বিষয়ে রেলমন্ত্রী বলেন, ‘কক্সবাজার থেকে ঘুমধুম হয়ে মিয়ানমারের সঙ্গে যদি রেললাইন হয়, তাহলে ভবিষ্যতে চীন, মালয়েশিয়া এবং থাইল্যান্ডের সঙ্গেও যুক্ত হবে। সেই চিন্তাও আমাদের মাথায় আছে।’ পদ্মা সেতুর সঙ্গে রেল সংযোগ স্থাপনের পর দক্ষিণাঞ্চলের সমস্ত জেলা এর সঙ্গে যুক্ত হবে। আখাউড়া দিয়ে আগরতলা হয়ে পার্শ্ববর্তী দেশের সঙ্গে রেলের সংযোগ হচ্ছে। এ ছাড়াও পাকিস্তান-ভারতের যুদ্ধের পর ভারতের সঙ্গে রেল যোগাযোগের যে জায়গাগুলো বন্ধ হয়ে গিয়েছিল, সেগুলো পুনঃপ্রতিষ্ঠার কাজ চলছে।

কর্ণফুলী নদীর ওপর বোয়ালখালী-কালুরঘাট সেতু নির্মাণের অগ্রগতি সংক্রান্ত এক প্রশ্নের জবাবে মন্ত্রী বলেন, ‘কালুরঘাট সেতুর জন্য সংসদ সদস্য মঈনউদ্দিন খান বাদল কয়েকদিন আগে মন্ত্রণালয়ে গিয়েছিলেন। তিনি বারবার সংসদে এটা বলেছেন। একনেকে এটা উঠেছিল। কিন্তু কিছু টেকনিক্যাল সমস্যার কারণে এটা আটকে গেছে। এই সমস্যা আমরা দূর করব।’

রেলমন্ত্রী বলেন, ‘মাননীয় প্রধানমন্ত্রী বিভিন্ন মন্ত্রণালয়ে যাচ্ছেন। যেদিন রেল মন্ত্রণালয়ে আসবেন, সেদিন এটা প্রধানমন্ত্রীর সামনে উপস্থাপন করব। প্রধানমন্ত্রীর দিকনির্দেশনা নিয়ে কাজ করব।’