• মার্চ ১১, ২০১৯
  • শীর্ষ খবর
  • 16
সুনামগঞ্জে ৯ উপজেলায় আ’লীগ ৪, বিদ্রোহী-স্বতস্ত্র ৪

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের ৯ উপজেলায় অনুষ্ঠিত নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদের আটটির মধ্যে চারটিতে আওয়ামী লীগ, তিনটিতে দলটির বিদ্রোহী এবং একটিতে নির্বাচন করার কারণে বিএনপি থেকে বহিষ্কৃত স্বতন্ত্র প্রার্থী বিজয়ী হয়েছেন। শাল্লা উপজেলায় গোলযোগের কারণে তিনটি কেন্দ্রের ভোট স্থগিত থাকায় ওই তিন কেন্দ্রে পুনরায় ভোটগ্রহণ শেষে বিজয়ী প্রার্থীর নাম ঘোষণা করা হবে। ওই উপজেলায় আওয়ামী লীগের প্রার্থী আল-আমিন এগিয়ে রয়েছেন।

৯ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে ২৮ প্রার্থী প্রতিদ্বন্দ্বিতায় অংশ নেন।

প্রসঙ্গত ‘ন্যায়সঙ্গত, নিরপেক্ষ ও আইন অনুযায়ী নির্বাচন পরিচালনা করা সম্ভব নয় প্রতীয়মান হওয়ায়’ জেলা জামালগঞ্জ উপজেলায় নির্বাচন স্থগিত করেছে নির্বাচন কমিশন।

সুনামগঞ্জ সদর: সুনামগঞ্জ সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের মনোনয়ন নিয়ে নৌকা প্রতীকে ৪০ হাজার ৫০৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন জেলা যুবলীগের আহ্বায়ক খায়রুল হুদা চপল। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী যুবলীগ নেতা মণিষ কান্তি দে মিন্টু ঘোড়া প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২৫ হাজার ৪১৭ ভোট।

বিশ্বম্ভরপুর: চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীক নিয়ে ২৩ হাজার ২৫২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী সফর উদ্দিন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ প্রার্থী রফিকুল ইসলাম পেয়েছেন ১৭ হাজার ৬০১ ভোট।

দক্ষিণ সুনামগঞ্জ: উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আনারস প্রতীক নিয়ে ৩৫ হাজার ১৪২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন ভোটে দাঁড়ানোর কারণে জেলা বিএনপির সহসভাপতির পদ থেকে বহিষ্কৃত স্বতন্ত্র প্রার্থী মো. ফারুক আহমদ। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী হাজী আবুল কালাম নৌকা প্রতীক নিয়ে ভোট পেয়েছেন ২২ হাজার ২০৭ ভোট।

তাহিরপুর: চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক নিয়ে ৫০ হাজার ৪০৪ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন জেলা আওয়ামী লীগের কৃষিবিষয়ক সম্পাদক করুণা সিন্ধু বাবুল। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী আনিসুল হক (জেলা বিএনপির সহসভাপতির পদ থেকে বহিষ্কৃত) মোটরসাইকেল প্রতীকে পেয়েছেন ২৪ হাজার ৩৩০ ভোট।

ছাতক: চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক নিয়ে ৬৬ হাজার ১৩০ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন উপজেলা আওয়ামী লীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক মো. ফজলুর রহমান। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী অলিউর রহমান চৌধুরী বকুল কাপ-পিরিচ প্রতীকে পেয়েছেন ২৭ হাজার ২৮০ ভোট।

দোয়ারাবাজার: চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক নিয়ে ৩১ হাজার ৪৮ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী ডা. মো. আবদুর রহিম। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী দেওয়ান তানভীর আশরাফী বাবু পেয়েছেন ১৯ হাজার ২৯১ ভোট।

দিরাই: চেয়ারম্যান পদে মোটরসাইকেল প্রতীক নিয়ে ২০ হাজার ৯২২ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগ বিদ্রোহী প্রার্থী মঞ্জুরুল আলম চৌধুরী। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ প্রার্থী প্রদীপ রায় নৌকা প্রতীক নিয়ে পেয়েছেন ২০ হাজার ৮৬০ ভোট।

শাল্লা: চেয়ারম্যান পদে নৌকা প্রতীক নিয়ে ২৪ হাজার ৯৮০ ভোট পেয়ে এগিয়ে রয়েছেন আওয়ামী লীগ প্রার্থী আবদুল্লাহ আল মাহমুদ (আল-আমিন চৌধুরী)। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী স্বতন্ত্র প্রার্থী জেলা আওয়ামী লীগের সহসভাপতি অ্যাডভোকেট অবণী মোহন দাস পেয়েছেন ১৯ হাজার ৩০৩ ভোট।

ধর্মপাশা: চেয়ারম্যান পদে ঘোড়া প্রতীক নিয়ে ৩৭ হাজার ৪৭৫ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন উপজেলা যুবলীগের আহ্বায়ক মোজাম্মেল হোসেন রুকন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ প্রার্থী শামীম আহমদ মুরাদ নৌকা প্রতীকে পেয়েছেন ২৯ হাজার ৩৭২ ভোট।