• মার্চ ১৯, ২০১৯
  • লিড নিউস
  • 18
সিলেটের ১২ উপজেলায় কার কত ভোট

নিজস্ব প্রতিবেদক: পঞ্চম উপজেলা নির্বাচনে সিলেটের ১২টি উপজেলায় ভোটগ্রহণ অনুষ্ঠিত হয়েছেন সোমবার (১৮ মার্চ)। দ্বিতীয় ধাপের নির্বাচনে ভোটের ফলাফলে সাতটিতে আওয়ামী লীগ ও পাঁচটিতে বিদ্রোহী (স্বতন্ত্র) প্রার্থীরা বিজয়ী হয়েছেন।

ভোটগ্রহণ ও গণনা শেষে রাতে প্রাপ্ত ফলাফলে তাদের বেসরকারিভাবে বিজয়ী ঘোষণা করেন রিটার্নিং কর্মকর্তা। বিজয়ী ১২ চেয়ারম্যান প্রার্থীর মধ্যে হ্যাট্রিক জয় পেয়েছেন সিলেট সদর উপজেলায় আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান আশফাক আহমদ।

কার কত ভোট:

সিলেট সদর উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আশফাক আহমদ (নৌকা) প্রতীকে ৪৫ হাজার ৫৩২ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে তৃতীয়বারের মতো চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থী মাজহারুল ইসলাম (আনারস) প্রতীকে পেয়েছেন ২৭ হাজার ১২৪ ভোট।

দক্ষিণ সুরমা উপজেলায় বর্তমান চেয়ারম্যান (নৌকা) প্রতীকে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী আবু জাহিদ ১৮ হাজার ৫১৩ ভোট পেয়ে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী ময়নুল ইসলাম (আনারস) প্রতীকে ১৫ হাজার ৭২৫ ভোট পেয়েছেন।

বিশ্বনাথ উপজেলায় নৌকা প্রতীকে আওয়ামী লীগের প্রার্থী এস এম নুনু মিয়া ৩১ হাজার ৪৬৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে চেয়ারম্যান নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান সুহেল আহমদ চৌধুরী (কাপ পিরিচ) প্রতীকে ১৮ হাজার ২৪৮ ভোট পেয়েছেন।

গোয়াইনঘাট উপজেলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী ফারুক আহমদ (মোটরসাইকেল) প্রতীকে ৩০ হাজার ৭৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার প্রতিদ্বন্দ্বী শাহ আলম স্বপন (ঘোড়া) প্রতীকে পেয়েছেন ২০ হাজার ৫৫২ ভোট। আওয়ামী লীগের অপর বিদ্রোহী যুক্তরাজ্য আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা গোলাপ মিয়া (কাপ পিরিচ) প্রতীকে ১২ হাজার ৭৪১ ভোট, আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী গোলাম কিবরিয়া হেলাল (নৌকা) প্রতীকে ১২ হাজার ২৪১ ভোট পেয়েছেন।

গোলাপগঞ্জ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান অ্যাডভোকেট ইকবাল চৌধুরী (নৌকা) প্রতীকে ৪৯ হাজার ৯১৩ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থী মাওলানা রশিদ আহমদ (আনারস) প্রতীকে পেয়েছেন ১৫ হাজার ১৭১ ভোট।

জকিগঞ্জ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে (নৌকা) প্রতীকে আওয়ামী লীগের মনোনীত প্রার্থী লোকমান উদ্দিন চৌধুরী ৪৮ হাজার ২৩৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী জাতীয় পার্টির মর্তজা আহমদ চৌধুরী (লাঙ্গল) প্রতীকে ১১ হাজার ৩৫২ ভোট পেয়েছেন।

বিয়ানীবাজার উপজেলায় আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী আবুল কাশেম পল্লব (হেলিকপ্টার) প্রতীকে ৩২ হাজার ৮৫৭ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকা) প্রতীকের প্রার্থী আতাউর রহমান খান পেয়েছেন ১৪ হাজার ৭৪১ ভোট।

বালাগঞ্জে চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী মোস্তাকুর রহমান মফুর (নৌকা) প্রতীকে ২৭ হাজার ৫৭৪ ভোট পেয়ে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থী বর্তমান উপজেলা চেয়ারম্যান আবদাল মিয়া (ঘোড়া) প্রতীকে পেয়েছেন ৮ হাজার ৫৭৬ ভোট।

ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী নুরুল ইসলাম। (কাপ পিরিচ) প্রতীকে তিনি পেয়েছেন ১২ হাজার ৮৬৯ ভোট। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী বিএনপির স্বতন্ত্র প্রার্থী ওয়াহিদুজ্জামান ছুফি চৌধুরী (দোয়াত কলম) প্রতীকে পেয়েছেন ৬ হাজার ৬৮৭ ভোট।

কানাইঘাটে আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী আব্দুল মুমিন চৌধুরী (নৌকা) প্রতীকে ২৯ হাজার ৭৪৯ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী মস্তাক আহমদ পলাশ (মটর সাইকেল) প্রতীকে ২১ হাজার ২২ ভোট পেয়েছেন।

জৈন্তাপুর উপজেলায় বিজয়ী হয়েছেন আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী কামাল আহমদ (ঘোড়া) প্রতীকে ৩১ হাজার ১০৬ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে নির্বাচিত হয়েছেন। তার নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত (নৌকা) প্রতীকের প্রার্থী লিয়াকত আলী ২১ হাজার ৯৯৫ ভোট পেয়েছেন।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলায় চেয়ারম্যান পদে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী স্বতন্ত্র প্রার্থী শামীম আহমদ (আনারস) প্রতীকে ২৮ হাজার ৬৬১ ভোট পেয়ে বেসরকারিভাবে বিজয়ী হয়েছেন। নিকটতম প্রতিদ্বন্দ্বী আওয়ামী লীগ মনোনীত প্রার্থী জাহাঙ্গীর আলম (নৌকা) প্রতীকে পেয়েছেন ২৩ হাজার ৪৫৭ ভোট।