• মে ১৪, ২০১৯
  • শীর্ষ খবর
  • 7
সারোয়ারসহ তার সহযোগীদের দ্রুত গ্রেফতারের আহ্বান চিকিৎসকদের

নিজস্ব প্রতিবেদক:  সিলেট উইমেন্স মেডিক্যাল কলেজের ইন্টার্ন চিকিৎসক ডা: নাজিফা আনজুম নিশাতকে ধর্ষণ ও ছোরা দেখিয়ে হুমকি দেয়ার ঘটনার সাথে জড়িত ছাত্রলীগ নেতা সারোয়ার হোসেন চৌধুরীসহ তার সহযোগীদের অবিলম্বে গ্রেফতার করার জন্য পুলিশের প্রতি আহ্বান জানিয়েছেন সিলেটের চিকিৎসকরা। মঙ্গলবার (১৪ মে) দুপুরে ঘোষিত কর্মসূচির অংশ হিসেবে সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আয়োজিত মানবন্ধনে এসব কথা বলেন বক্তারা।

তারা বলেন, সন্ত্রাসীরা যতই বড় হউক আইনের উর্ধ্বে কেউ নয়। সারোয়ারসহ তার সহযোগীরা সিলেট উইমেন্স হাসপাতালে যে ঘটনা ঘটিয়েছে তা কখন মেনে নেয়া যায় না। এজন্য তার শাস্তির প্রয়োজন। যদি সারোয়ারকে পুলিশ দ্রুত গ্রেফতারে ব্যর্থ হয় তাহলে  আন্দোলন আরও তীব্রতা পাবে। মানবন্ধনে সিলেটের অন্যান্য মেডিক্যাল হাসপাতালের চিকিৎসকরাও অংশ নেন।

এদিকে,  দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সহ সভাপতি সারোয়ার হোসেন চৌধুরীকে প্রধান আসামী করে অজ্ঞাত আরও ৮-১০ জনের বিরুদ্ধে থানায় মামলা হয়েছে। সোমবার (১৩ মে ) রাতে মহানগর পুলিশের কোতোয়ালি থানায় মামলা নং-২২ দায়ের করেন হাসপাতালের পরিচালক ডা: ফেরদৌস হাসান। এর আগে গত শনিবার (১১ মে) ইন্টার্ন চিকিৎসক ডা: নাজিফা আনজুম নিশাতের নিরাপত্তা চেয়ে থানায় সাধারণ ডায়রি নং- ৬১৭ দায়ের করেছিলেন ডা: ফেরদৌস হাসান।

উল্লেখ্য, বৃহস্পতিবার (৯ মে) বিকালে ১০-১৫ জন ছাত্রলীগ নেতাকর্মী পেটের পীড়ায় ভোগা একজনকে সিলেট উইমেন্স মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যান। রোগীর সঙ্গে একজন থেকে বাকিদের বাইরে যেতে বলেন কর্তব্যরত চিকিৎসক। এ নিয়ে কথা কাটাকাটির এক পর্যায়ে চিকিৎসকের ওপর চড়াও হন ছাত্রলীগ নেতাকর্মীরা। এসময় দক্ষিণ সুরমা উপজেলা ছাত্রলীগের সহসভাপতি সারোয়ার হোসেন চিকিৎসক নাজিফা আনজুম নিশাতকে ছুরি প্রদর্শন করে হত্যা ও ধর্ষণের হুমকি দেন বলে অভিযোগ করেন ওই চিকিৎসক। নিশাত নিজের ব্যক্তিগত ফেসবুক আইডিতে বিষয়টি উল্লেখ করে পোস্ট দিলে এনিয়ে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ব্যাপক আলোচনার সৃষ্টি হয়।