• মে ৩১, ২০১৯
  • আন্তর্জাতিক
  • 55
কুঁড়েঘরের সেই মোদি প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেলেন

আন্তর্জাতিক ডেস্ক: ভারতের ১৭ তম লোকসভা নির্বাচনে প্রধানমন্ত্রী হিসেবে টানা দ্বিতীয়বার শপথ গ্রহণ করেছেন নরেন্দ্র মোদি। তার নতুন মন্ত্রিসভায় আরেকজন ‌‌‘মোদি’ আছেন যার আসল নাম প্রতাপ চন্দ্র সারেঙ্গি (৬৪)। তিনি মোদির মন্ত্রিসভায় ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প, পশুপালন দফতরের প্রতিমন্ত্রীর দায়িত্ব পেয়েছেন। প্রতাপ চন্দ্র সারেঙ্গি উড়িষ্যার মোদি হিসেবেও খ্যাত।

বৃহস্পতিবার ভারতের নতুন মন্ত্রিসভা শপথ গ্রহণ করে। সবচেয়ে বেশি হাততালি পেয়েছেন সবচেয়ে অখ্যাত এই মানুষটি। এতদিন উড়িষ্যার বাইরে তিনি খুব একটা পরিচিতও ছিলেন না। অথচ এখন তিনি ভারতের অন্যতম আলোচিত ব্যক্তি। উড়িষ্যার নীলগিরির গোপীনাথপুর গ্রামে এক গরীব ঘরে জন্ম প্রতাপ সারেঙ্গির। স্থানীয় ফকির কলেজ থেকে স্নাতক পাস করেছেন।

ইচ্ছা ছিল, সাধু হয়ে দেশ আর মানুষের সেবা করবেন। কিন্তু মঠের সন্ন্যাসীরা যখন জানলেন, তার বাবা মারা গেছেন, বাড়িতে মা একা, সঙ্গে সঙ্গে ফেরত পাঠিয়ে দেন মায়ের সেবা করার জন্য। মঠের সাধু না হতে পারলেও, তাদের মতো সাধারণ জীবনযাপনের অভ্যাস কখনো ছাড়েননি প্রতাপ। বিয়েও করেননি।

বাঁশ দিয়ে তৈরি কুড়েঘরে থাকেন তিনি। সাইকেলে চড়ে যাতায়াত করেন। লোকসভা নির্বাচনে অটোতে করে প্রচারণা চালিয়েছেন। লোকসভার সদস্য হওয়ার আগে প্রতাপ সারেঙ্গি উড়িষ্যার নীলগিরি আসন থেকে বিধায়ক হয়েছিলেন। ২০০৪ ও ২০০৯ সালে বিধানসভা নির্বাচনে জেতেন তিনি। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে সামান্য ভোটের ব্যবধানে হেরে যান এ বিজেপি নেতা।

নির্বিবাদ এ মানুষটি নির্বাচনে জেতায় স্থানীয়রা যেমন খুশি, খুশি হয়েছেন প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদিও। তার সঙ্গে প্রতাপের বেশ খাতির। মোদি উড়িষ্যায় গেলে সারেঙ্গির সঙ্গে অবশ্যই দেখা করেন। শুধু বিজেপির রাজনীতিই নয়, তাদের মধ্যে মিল আছে আরেক জায়গাতেও।

দু’জনেই রামকৃষ্ণ মিশনের সাধু হতে গিয়েছিলেন, দু’জনকেই সন্ন্যাসীরা ফিরিয়ে দিয়েছেন। পাকাপোক্তভাবে গেরুয়া ধারণ না করলেও দু’জনেই এখন গেরুয়া শিবিরের সদস্য।