• জুলাই ৮, ২০১৯
  • লিড নিউস
  • 31
কোম্পানীগঞ্জে নৌকা ডুবিতে ২ জন নিহত: ভোলাগঞ্জ সাদা পাথরে ১ জন নিখোঁজ

কোম্পানীগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সিলেটেরে কোম্পানীগঞ্জ উপজলোর ধলাই নদীতে নৌকাডুবেিত ২জন নিহতএবং ভোলাগঞ্জ সাদা পাথরে ১জন পর্যটক নিখোঁজ হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। নৌকা ডুবিতে নিহত দুই কিশোর শ্রমকিরে লাশ উদ্ধার করা হয়েছে। এছাড়া ভোলাগঞ্জ সাদা পাথরে নিখোঁজ একজনকে উদ্ধারে চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছনে ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা।

রোববার গভীর রাতে ধলাই নদীর টুকের বাজার ঘাটে নোঙ্গর করে একটি বালু বোঝাইকৃত ইঞ্জিন নৌকার তিন শ্রমিক ঘুমিয়ে ছিল। নোঙ্গর করা ইঞ্জিন নৌকাটি গভীর রাতে ডুবে গেলে ঘুমন্ত তিন শ্রমিকের মধ্যে দুই শ্রমকিরে মৃত্যু হয়। নিহত দুই শ্রমিকের নাম নাঈম হোসেন (১৮) ও জমির হোসেন (১৫)। নিহতরা সুনামগঞ্জ জেলার বিশ^ম্ভরপুর উপজেলার বাতেরটেক গ্রামের আবু তাহের ও আবু সামার ছেলে বলে জানা গেছে। নিহত দুইজনের লাশ স্বজনরা গ্রামের বাড়িতে নিয়ে গেছে। এই ঘটনায় থানায় একটি অপমৃত্যুর মামলা দায়ের হয়েছে।

অপর দিকে দুপুর ১টার দিকে ভোলাগঞ্জ সাদা পাথরে ঘুরতে আসা হাসানুর রহমান আদিল (২৫) নামের লিডিং ইউনির্ভাসিটির এক ছাত্র নিখোঁজ হয়েছে বলে খবর পাওয়া গেছে। সে সিলেট শহরের চৌকিদেখী মোগনী আবাসিক এলাকার মতিউর রহমানের ছেলে।

প্রত্যক্ষদর্শী পাড়ুয়া বদিকোনা গ্রামের সাহাব উদ্দিন ও আব্দুল আহাদ বতুল্লাহ জানান, বেলা ১টার দিকে সিলেট থেকে ৮জন বন্ধু ভোলাগঞ্জের সাদা পাথরে ঘুরতে আসেন। তারা ৮জনই শখের বসে সাদা পাথর এলাকায় সাতাঁর কাটতে নামেন। তাদের ৮জনের মধ্যে নিখোঁজ আদিল সাতাঁর জানতেন না। সাদা পাথরের জিরো লাইন এলাকায় নদীর প্রবল ¯্রােতে আদিল তলিয়ে যায়। অনেক খুজাখুজি করেও তার সন্ধান না পাওয়ায় সিলেট ফায়ার সার্ভিসকে খবর দেওয়া হয়। বিকেল সাড়ে তিনটা থেকে এই রিপোর্ট লেখা পর্যন্ত (সন্ধ্যা ৭টা) ফায়ার সার্ভিসের ডুবুরিরা নিখোঁজ আদিলের লাশ উদ্ধার করতে পারেনি। ঘটনাস্থলে নিখোজের স্বজনরা ও পুলিশ অবস্থান করছে।

কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা নিবার্হী অফিসার বিজেন ব্যানাজী ও থানার অফিসার ইনর্চাজ তাজুল ইসলাম দুটি ঘটনার সত্যতা শিকার করে বলেন নৌকা ডুবিতে নিহত দুই কিশোর শ্রমিকের লাশ স্বজনদের কাছে হস্তান্তর করা হয়েছে। নিখোঁজ হাসানুর রহমান আদিলের লাশ উদ্ধারের চেষ্টা চলছে।
অন্য দিকে বেলা সাড়ে তিনটায় ধলাই নদীর টুকের বাজার এলাকায় খেয়া পারাপারের সময় একটি ইঞ্জিন নৌকার ধাক্কায় খেয়া নৌকা ডুবে গেছে। এতে দুই শিশু নিখোঁজ হয়েছে বলে এলাকায় গুঞ্জনের সৃষ্টি হয়। উৎসুক জনতা নিখোঁজ দুই কিশোরের সন্ধানে নদীতে সন্ধ্যা পর্যন্ত মাছ ধরার জাল দিয়ে উদ্ধারের চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু নিখোঁজ দুই শিশুর কোন অবিভাবক পাওয়া যাচ্ছে না। অনেকেই ঘটনাটিকে গুজব বলে দাবি করছেন। স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান বাবুল মিয়া খেয়া নৌকা ডুবির ঘটনার সত্যতা শিকার করে বলেন, লোকজনের কাছ থেকে শুনে আমরা নদীতে তল্লাশি করছি। এখনো কোন সন্ধান পাওয়া যায়নি। নিখোঁজের ঘটনাটি গুজব বলে তিনি নিজেও ধারনা করছেন।