• সেপ্টেম্বর ৯, ২০১৯
  • খেলাধুলা
  • 35
বিজয় দিয়েই ক্যারিয়ার শেষ করলেন নবি

ক্রীড়া ডেস্কঃ বিজয় দিয়েই টেস্ট ক্যারিয়ার শেষ করলেন ৩৪ বয়সী আফগান ক্রিকেটার মোহাম্মদ নবি। চট্টগ্রাম টেস্ট চলাকালেই হঠাৎ ঘোষণাটা দিয়ে বসলেন মোহাম্মদ নবি। বয়সটা ৩৪ ছাড়িয়ে গেছে। চাইলে আরও কিছুদিন খেলতে পারতেন। কিন্তু তরুণদের উঠে আসার সুযোগ দিতে হবে। তার ক্যারিয়ারের আসল সংগ্রাম ছিল দেশকে টেস্ট স্ট্যাটাস এনে দেয়া। শুধু স্ট্যাটাস এনে দেয়াই নয়, তিন টেস্টের মধ্যে দুটিতে জয়ও উপহার দিয়েছেন তিনি।

এ কারণেই মোহাম্মদ নবি চট্টগ্রাম টেস্ট চলাকালেই দীর্ঘ সংস্করণের ক্রিকেট বিদায় জানিয়ে রাখলেন। অবশেষে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়াম তাকে দু’হাতে ঢেলে দিয়েই বিদায় জানালো।

বাংলাদেশের বিপক্ষে একমাত্র টেস্টের সিরিজ। এই ম্যাচে আফগানিস্তান জিততে পারবে, টেস্ট শুরুর আগে এমন চিন্তাও হয়তো তারা করেনি। কিন্তু বাস্তবতা হলো ভিন্ন। ম্যাচের একেবারে শুরু থেকেই বাংলাদেশের চেয়ে দারুণ খেলে এগিয়ে ছিল তারা। কি ব্যাটিং, কি বোলিং- সব দিকেই প্রতিটি দিনই বাংলাদেশকে পেছনে রেখে খেলে গেছে আফগানরা।

বৃষ্টি বড় বাধা হয়ে দাঁড়ালেও শেষ মুহূর্তে ঠিকই জয় নিয়ে মাঠ ছাড়তে পারলো আফগানিস্তান। ২২৪ রানের বিশাল ব্যবধানে জয়। নিজের ক্যারিয়ারের শেষ ম্যাচে এমন জয় সত্যিই অভাবনীয়। মোহাম্মদ নবি এই জয়ে অবদানও রেখেছেন বেশ। ব্যাট হাতে ব্যর্থ ছিলেন। প্রথম ইনিংসে শূন্য, পরের ইনিংসে ৮।

তবে বল হাতে প্রথম ইনিংসে নিয়েছেন ৩ উইকেট। সৌম্য, মুমিনুল এবং তাইজুলের উইকেট নিয়েছিলেন তিনি। দ্বিতীয় ইনিংসে নিয়েছেন ১ উইকেট। সাজঘরে ফেরান সাদমান ইসলামকে।

গৌরবময় জয় দিয়ে ক’জনই বা বিদায় নিতে পারে? মোহাম্মদ নবির বেলায় সেই গৌরব জুটে গেছে। যে কারণে চট্টগ্রামের জহুর আহমেদ চৌধুরী স্টেডিয়ামে সতীর্থরা ব্যাট দিয়ে গেইট তৈরি করে জানালো বিদায়ী গার্ড অব অনার। একবার নয়, দু’বার। প্রথমবার সব ক্রিকেটারর দাঁড়াতে পারেননি। পরে আরও একবার নবিকে গার্ড অব অনার দিয়ে সাদা পোশাকের ক্রিকেট থেকে বিদায় জানালো রশিদ খানরা।

গার্ড অব অনার দেয়ার পর রশিদ খান জড়িয়ে ধরেন মোহাম্মদ নবিকে। এরপর পুরস্কার বিতরণী মঞ্চে যখন বিজয়ের ট্রফি নিতে যান রশিদ খান, তখন সঙ্গে নিয়ে যান মোহাম্মদ নবিকেও। বিদায়ী তারকাকে এভাবেই সম্মান জানালো পুরো আফগানিস্তান।

তিন টেস্টের ক্যারিয়ার নবি রান করেছেন মোটে ৩৩। উইকেট নিয়েছেন ৮টি। আহামরি কিছু নয়। তবে, আফগান ক্রিকেটে উজ্জ্বল একটি জায়গা ধরে রাখবেন তিনি।