• জানুয়ারি ১৯, ২০২০
  • মৌলভীবাজার
  • 76
বড়লেখায় স্ত্রী-শাশুড়িসহ চারজনকে কুপিয়ে হত্যা, ঘাতকের আত্মহত্যা

মৌলভীবাজার প্রতিনিধিঃ মৌলভীবাজার জেলার বড়লেখা উপজেলায় স্ত্রী-শাশুড়িসহ ৪ জনকে কুপিয়ে হত্যা করে নিজে আত্মহত্যা করেছেন নির্মল কর্মকার (৪০) নামে এক যুবক।

রবিবার (১৯ জানুয়ারী) ভোরে বড়লেখা উপজেলার পাল্লাতল চা বাগানে এ ঘটনা ঘটেছে। বড়লেখা থানার ওসি মো. ইয়াসিনুল হক এ হত্যার ব্যপারে গণমাধ্যমকে এ তথ্য নিশ্চিত করে বলেন, নিহতদের মধ্যে ৩ জন নারী এবং ২ জন পুরুষ।নিহতরা সবাই চা শ্রমিক ছিলেন।

হত্যাকাণ্ডের শিকার চারজন হলেন, নির্মলের স্ত্রী জলি ব্যানার্জি (৩৫), তার শাশুড়ি লক্ষ্মী ব্যানার্জি (৫০), পাশের ঘরের বসন্ত ভৌমিক (৫৫), বসন্তের মেয়ে শিউলি ভৌমিক (১৬)। এছাড়া নির্মলের দায়ের কোপে গুরুতর আহত হয়েছেন বসন্ত ভৌমিকের স্ত্রী কানন ভৌমিক। তাকে সিলেট এমএজি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

পুলিশ সূত্রে জানা যায়, পারিবারিক কলহের জেরে এই হত্যাকাণ্ডের ঘটনা ঘটেছে বলে প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে। দেশীয় ধারালো অস্ত্রের আঘাতে তাদের হত্যা করা হয়েছে। এদের মধ্যে ঘরের মেঝেতে একজনের লাশ ঝুলন্ত অবস্থায়, অন্য লাশগুলো ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকাবস্থায় উদ্ধার করে পুলিশ।

স্থানীয় সূত্র জানায়, নির্মলের বাড়ি এই এলাকায় নয়। এক বছর আগে জলির সঙ্গে তার বিয়ে হয়। তারপর থেকে তিনি শ্বশুর বাড়িতেই থাকতেন।

প্রতিবেশীরা জানান, ভোর ৫টার দিকে নির্মল ও জলির মধ্যে ঝগড়া শুরু হয়। একপর্যায়ে জলিকে মারধর করতে থাকলে দৌঁড়ে অন্য ঘরে বাবা-মায়ের কাছে চলে যান। তখন নির্মল ধারালো অস্ত্র দিয়ে জলিকে কোপাতে থাকে। মেয়েকে রক্ষা করতে শাশুড়ি ছুঁটে আসলে তাকেও কোপায় নির্মল। এরপর পাশের ঘরের বসন্ত ও তার মেয়ে শিউলি সেখানে আসলে দু’জনকে এলোপাতাড়ি কোপাতে থাকে নির্মল। পরে চারজনের মৃত্যু হলে নির্মল নিজের ঘরে গিয়ে আত্মহত্যা করেন।

ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে লাশগুলোর সুরতহাল শেষে ময়নাতদন্তের জন্য মর্গে পাঠানোর প্রস্তুতি সম্পন্ন করেছেন।