• মে ১৫, ২০২০
  • শীর্ষ খবর
  • 345
মানুষের পাশে দাঁড়ানো আমার কর্তব্য : ময়েজ উদ্দিন শরীফ রুয়েল

আবদাল মিয়া, বানিয়াচং প্রতিনিধিঃ অসুস্থ শরীর নিয়ে অসহায় মানুষদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে খাদ্য সামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন আওয়ামীলীগ নেতা অ্যাডভোকেট ময়েজ উদ্দিন শরীফ রুয়েল।সরকার কর্তৃক লকডাউনের ফলে বেকার হয়ে পড়া দরিদ্র মানুষদের কাছে খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করতে গিয়ে জ্বরে আক্রান্ত হন তিনি। করোনা পরীক্ষার নমুনা জমা দিলে পরীক্ষায় নেগেটিভ আসে। এখানেই থেমে থাকেননি তিনি। আবারও বানিয়াচং-আজমিরীগঞ্জ উপজেলার প্রত্যন্ত দুর্গম এলাকায় গিয়ে অসহায় দরিদ্র মানুষদের বাড়ি বাড়ি গিয়ে ক্রমাগত খাদ্য সামগ্রী বিতরণ করে যাচ্ছেন আওয়ামীলীগ নেতা অ্যাডভোকেট ময়েজ উদ্দিন শরীফ রুয়েল।

জানা যায়, রুয়েল কোন জনপ্রতিনিধি নন, তবুও তার সামর্থ্য অনুযায়ী নিজস্ব তহবিল থেকে মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছেন তিনি। শুক্রবার ১৫ এপ্রিল সকাল থেকেই গরীব-দুঃখী মানুষকে খুঁজে খুঁজে বের করে নিত্যপ্রয়োজনীয় খাদ্যসামগ্রী পৌঁছে দিচ্ছেন সাবেক প্রয়াত এমপি অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন আহমেদ তনয় ময়েজ উদ্দিন শরীফ রুয়েল। তিনি সর্বপ্রথম করোনা আক্রান্ত ব্যক্তিদের পরিবারে ১মাসের খাবার পৌঁছে দিয়েছিলেন।

প্রাচ্যের অক্সফোর্ড নামে খ্যাত ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে আইনে স্নাতকোত্তর করা ছাত্রলীগের সাবেক নেতা থেকে তিনি আজ আওয়ামীলীগের কেন্দ্রীয় নেতা। তাঁর পিতা অ্যাডভোকেট শরীফ উদ্দিন আহমেদ (স্যার) ছিলেন মুক্তিযুদ্ধের অন্যতম একজন সংগঠক এবং হবিগঞ্জ জেলা আওয়ামীলীগের সভাপতি। ছিলেন হাওরাঞ্চল এলাকা নামে খ্যাত হবিগঞ্জ-২ আসনের ২বারের এমপি। যে নামটি এখনো গণ মানুষের মুখে মুখে উচ্চারিত হয়।

অ্যাডভোকেট ময়েজ উদ্দিন শরীফ রুয়েল জানান, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আদর্শের একজন সন্তান হিসেবে আমার দায়িত্ব এবং কর্তব্য হচ্ছে দুঃখী মানুষের পাশে দাঁড়ানো। আমৃত্যু আমার পিতাও সাধারণ মানুষকে ভালোবেসে গেছেন। আমার পিতা সরকারি দল পেয়েছেন মাত্র ১মাস ২৪ দিন। এর মধ্যে আজকের শরীফ উদ্দিন সড়ক সংসদে শুধু উত্থাপন করতে পেরেছিলেন। এরপর তিনি মারা যান। তিনি দীর্ঘদিন যাবত বিরোধী দলে থেকে নির্বাচন করেছেন। সেই সময়কার মানুষদের ভালোবাসার প্রতিদান হিসেবে আজ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সাধারণ মানুষের পাশে দাঁড়াচ্ছি। এ দাঁড়ানো হচ্ছে মানবতা থেকে।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •