• সেপ্টেম্বর ২৮, ২০২০
  • লিড নিউস
  • 229
ধর্ষণে জড়িত রাজন, আইন উদ্দিন ও তারেক : আদালতকে সাইফুরের স্বীকারোক্তি

নিউজ ডেস্কঃ আদালতে নিজেকে নির্দোষ বলে দাবি করেছে এমসি কলেজের ছাত্রাবাসে তরুণী ধর্ষণ মামলার প্রধান আসামি সাইফুর রহমান। ধর্ষণে অন্য তিনজন জড়িত বলেও আদালতে দাবি করেছেন তিনি।

সোমবার দুপুরে কড়া নিরাপত্তার মধ্য দিয়ে চাঞ্চল্যকর এই মামলার প্রধান আসামি সাইফুর রহমান ও আরেক আসামি অর্জুন লস্করে আদালতে হাজির করা হয়। সিলেট মহানগর হাকিম ২য় আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড চাইলে বিচারক সাইফুর রহমান তাদের ৫ রিমান্ড মঞ্জুর করেন।

রিমান্ড শুনানিকালে আসামিদের পক্ষে কোনো আইনজীবী অংশ নেননি। তবে বেশকয়েকজন আইনজীবী রাষ্ট্রপক্ষের সহযোগিতা করে শুনানিতে অংশ নেন।

শুনানিতে অংশ নেওয়া একাধিক আইনজীবী জানান, আসামিদের পক্ষে কোনো আইনজীবী তা থাকায় আদালত আসামিদের কাছে তাদের কোনো বক্তব্য আছে কী না জানতে চান। এসময় সাইফুর রহমান নিজেকে নির্দোষ হিসেবে দাবি করেন। তিনি আদালতকে বলেন, রাজন, আইন উদ্দিন ও তারেক এই ঘটনা ঘটিয়েছে। আমি জড়িত ছিলাম না।

শুক্রবার এমসি কলেজের ছাত্রবাসে ঘটা ধর্ষণের ঘটনায় পরদিন শনিবার শাহপরান থানায় মামলা করেন ধর্ষিতার স্বামী। মামলায় তারেকুল ইসলাম তারেককে আসামি করা হলেও রাজন ও আইন উদ্দিনের নাম নেই। তবে এজাহারে ধর্ষতার স্বামী অজ্ঞাতনামা ৩ জনকে আসামি করেছেন। যাদের পরিচয় তিনি নিশ্চিত হতে পারেননি বলে জানিয়েছেন।

আজ শুনানি শেষে আদালত সাইফুর রহমান ও অর্জুন ঘোষের ৫ দিনের রিমান্ড মঞ্জুর করেন বলে জানান সিলেট মহানগর পুলিশের সহকারী কমিশনার (প্রসিকিউশন) অমূল্য কুমার চৌধুরী।

রিমান্ড শুনানিকালে এপিপি খোকন কুমার দত্তের সাথে রাষ্ট্রপক্ষকে সহায়তা করেন এডভোকেট মুজিবুর রহমান, এডভোকেট সাজ্জাদ আহমদ, এডভোকেট প্রবাল চৌধুরী পূজন, এডভোকেট দেবব্রত চৌধুরী লিটন প্রমুখ।

এরআগে কড়া নিরাপত্তার মধ্যে সাইফুর ও অর্জুনকে আদালতে হাজির করে ৭ দিনের রিমান্ড আবেদন করেন এই মামলার তদন্ত কর্মকর্তা শাহপরাণ থানার ওসি (তদন্ত) ইন্দ্রনীল ভট্টাচার্য।

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •