• অক্টোবর ২৯, ২০২১
  • শীর্ষ খবর
  • 482
সুনামগঞ্জে সড়কে জনদুর্ভোগ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জ পৌরসভার আব্দুজ জহুর সেতুর নিচে মল্লিকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের পাশের সড়কের কিছু অংশে কাদা হয়ে আছে। সড়কের এই অংশে সব সময় পানি জমে থাকায় দীর্ঘদিন ধরে চলাচলের অনুপযোগী হয়ে রয়েছে। এতে বিপাকে পড়েছে শিক্ষার্থী, পথচারী ও এলাকাবাসী।

খোঁজ নিয়ে জানা যায়, এই এলাকায় ২টি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। একটি মল্লিকপুর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় আরেকটি সুনামগঞ্জ আইডিয়াল একাডেমি। এই দুই বিদ্যালয়ের মাঝেই সেতুর নিচের কিছু জায়গায় সব সময় পানি লেগে থাকে।

এতে কাদা ও নোংরা পানি জমে থেকে দুর্গন্ধ সৃষ্টি হয়েছে। ফলে বিপাকে পড়েছে এ দুটি বিদ্যালয়ের কর্তৃপক্ষ। তারা জানিয়েছেন, এ রকম ভোগান্তি নিরসনের জন্য পৌরসভাকে জানানো হয়েছে।

তেঘরিয়ার বাসিন্দা হিরু মিয়া ফেরি করে শাকসবজি বিক্রি করেন। তিনি জানান, মল্লিকপুরে প্রতিদিনই সবজি বিক্রি করতে আসি। ব্রিজের এক পাশে বিক্রি করা গেলেও আরেকপাশে যাওয়ার পর পড়তে হয় বিপাকে। দুই স্কুলের মাঝ অংশে সেতুর নিচে সব সময় ময়লা পানি জমে থাকে। এতে চলাচল করতে অসুবিধা হয়।

সুনামগঞ্জ আইডিয়াল একাডেমির ভাইস প্রিন্সিপাল নির্মল বৈদ্য বললেন, আমাদের বিদ্যালয়ের পেছনে ভোজন রেস্টুরেন্ট রয়েছে। রেস্টুরেন্টের ময়লাযুক্ত পানি সেতুর নিচে চলে আসে। এখানের ড্রেনেজ ব্যবস্থায় সমস্যা থাকায় পানি অপসারণ না হয়ে জমে থেকে দুর্গন্ধ ছড়াচ্ছে। এতে বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীদের চলাফেরা করতেও ভোগান্তিতে পড়তে হচ্ছে।

মল্লিকপুর প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কানন বৈদ্য রায় জানান, ড্রেনেজ ব্যবস্থায় সমস্যা থাকার কারণে পানি জমে থাকে। শিক্ষার্থীদের চলাচল করতেও সমস্যা হয়। এজন্য নিজেরা কয়েকবার ড্রেন পরিষ্কার করে দিয়েছে। তবুও সমস্যার সমাধান হচ্ছে না।

ড্রেনেজ ব্যবস্থায় কোনো সমস্যা নেই উল্লেখ করে সুনামগঞ্জ পৌরসভার প্যানেল মেয়র আহমদ নুর জানান, ড্রেনে কোনো সমস্যা নেই। সড়কের এই অংশ ভেঙে নিচু হয়ে গেছে। এজন্য সব সময় পানি জমে থাকে।

দুই বছর আগেও এ রকম হয়। তখন সড়ক ও জনপথ বিভাগকে অবহতি করার পর ঠিক করে দেওয়া হয়। এখন আবারও ভেঙে গর্ত হয়ে গেছে। এটি সড়ক ও জনপথ বিভাগের কাজ বলে জানান তিনি।

সুনামগঞ্জ সড়ক ও জনপথ বিভাগের নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম খোঁজখবর নিয়ে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নেওয়ার কথা জানিয়েছেন।