• ফেব্রুয়ারি ১৬, ২০২২
  • লিড নিউস
  • 360
সুনামগঞ্জে ছেলে হত্যার বিচার চেয়ে একাই রাস্তায় নামলেন মা

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ সুনামগঞ্জ পৌর শহরে আদালতের সামনের সড়কের পাশেই মানববন্ধনের একটি ব্যানার টানানো। ব্যানারে বড় হরফে লেখা, ‘রাব্বি হত্যার বিচার চাই’। তবে মানববন্ধনে রুপিয়া বেগম (৪৫) নামের এক নারী একাই দাঁড়িয়েছেন। তাঁকে ঘিরে দাঁড়িয়ে আছেন বিভিন্ন বয়সী মানুষ। আজ বুধবার দুপুরের দৃশ্য এটি।

মানববন্ধনে দাঁড়ানো ওই নারীই রাব্বির মা। রুপিয়া বেগমের বাড়ি সুনামগঞ্জের ছাতক উপজেলার নোয়ারাই ইউনিয়নের পূর্ব নোয়ারাই গ্রামে। তাঁর একমাত্র ছেলে মেহেদী হাসান রাব্বি (২২) হত্যার সঙ্গে জড়িত ব্যক্তিদের বিচারের দাবিতে আজ তিনি একাই এ মানববন্ধন করেছেন।

রুপিয়া বেগম বলেন, ২০১৯ সালে ২৩ জুলাই বিকেলে ছাতক পৌর শহরের সিমেন্ট ফ্যাক্টরি এলাকার বাজারের একটি দোকানে বসে ছিলেন রাব্বি। এ সময় দুর্বৃত্তেরা রাব্বির ওপর হামলা চালায়। দুর্বৃত্তদের ধারালো অস্ত্রের আঘাতে রাব্বি গুরুতর আহত হন। পরে রাব্বিকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে গেলে রাতে চিকিৎসাধীন অবস্থায় তিনি মারা যান।

ঘটনার পর ২৬ জুলাই রুপিয়া বেগম বাদী হয়ে ১৭ জনের বিরুদ্ধে ছাতক থানায় একটি হত্যা মামলা করেন। এরপর পুলিশ বিভিন্ন সময়ে কয়েকজন আসামিকে গ্রেপ্তার করে। তবে আসামিদের কেউ কেউ উচ্চ আদালত থেকে জামিন পেয়েছেন। বর্তমানে আসামিদের মধ্যে শুধু লিয়াকত আলী জেলে আছেন। এ ছাড়া একজন আসামি পলাতক। পুলিশ মামলার তদন্ত করে ১৭ আসামির মধ্যে ১২ জনের বিরুদ্ধে আদালতে অভিযোগপত্র দিয়েছে। অভিযোগপত্র থেকে বাদ পড়া আসামিদের নাম আবার যুক্ত করতে রুপিয়া বেগমের আইনজীবী আদালতে আবেদন করেছেন।

রুপিয়া বেগম বলেন, স্বামীর মৃত্যুর পর তিনি অনেক কষ্ট করে তাঁর ছেলে রাব্বিকে বড় করেছেন। দোকানের কর্মচারী হিসেবে কাজ করে রাব্বি সংসার চালাতেন। ছেলেকে হারিয়ে তিনি দিশাহারা হয়ে পড়েছেন। আসামিরা প্রভাবশালী হওয়ায় তিনি ন্যায়বিচার থেকে বঞ্চিত হওয়ার আশঙ্কা করছেন।

রুপিয়া বেগমের আইনজীবী মল্লিক মো. মইন উদ্দিন বলেন, মামলার আইনি প্রক্রিয়া চলছে। অভিযোগপত্র থেকে বাদ পড়া আসামিদের আবার যুক্ত করতে আদালতে আবেদন করা হয়েছে। এ আবেদন শুনানির পর্যায়ে আছে।