• ফেব্রুয়ারি ২৮, ২০২২
  • রাজনীতি
  • 353
সরকার জনবান্ধব নয় তাই নিত্যপণ্যের দাম বাড়ছে : ড. মোশাররফ

নিউজ ডেস্কঃ বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য ও সাবেক মন্ত্রী ড. খোন্দকার মোশাররফ হোসেন বলেছেন, নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের ঊর্ধ্বগতিতে দেশের মানুষের নাভিশ্বাস উঠছে। সবকিছুর দাম এত বেশি, বলা যায় আকাশছোঁয়া দাম। অথচ এ সরকার ভোট পাওয়া জন্য বলেছিলো ১০ টাকা কেজিতে দেশের মানুষকে চাল খাওয়াবে। কিন্তু দিন দিন এ সরকার চাল-ডাল-তেলসহ সকল নিত্যপণ্যের দাম বাড়াচ্ছে।

সোমবার (২৮ ফেব্রুয়ারি) বিকালে নগরীর চৌহাট্টাস্থ সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে সিলেট মহানগর বিএনপি আয়োজিত প্রতিবাদ সমাবেশে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

বর্তমান সরকার জনবান্ধব নয়, এই সরকার জনগণের নয়- তাই নিত্যপণ্যের এভাবে একের এক দাম বাড়াচ্ছে বলে মন্তব্য করেন ড. খোন্দকার মোশাররফ হোসেন।

নিত্যপ্রয়োজনীয় দ্রব্যের মূল্য একের পর এক বৃদ্ধির প্রতিবাদে কেন্দ্রীয় কর্মূচির অংশ হিসেবে সিলেটে মিছিল ও সমাবেশ কর্মসূচি পালন করেছে মহানগর বিএনপি।

সোমবার বিকাল ৩টা থেকে নগরীর চৌহাট্টাস্থ সিলেট কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে শুরু হয় হয় এ প্রতিবাদ সমাবেশ। এর আগে সমাবেশস্থলে এসে পৌঁছেন সিলেট সিটি করপোরেশেনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরীসহ জেলা ও মহানগর বিএনপির শীর্ষ নেতৃবৃন্দ।

জোহরের পর থেকেই মহানগরের বিভিন্ন ইউনিটের নেতাকর্মীরা মিছিল সহকারে সমাবশেস্থলে উপস্থিত হন। উপস্থিত হন ছাত্রদল-যুবদলসহ বিভিন্ন শাখার নেতাকর্মীরাও।

এদিকে, সমাবেশ শুরুর আগে কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারের বেদিতে নেতাকর্মীদের অনেকেই জুতা পায়ে ওঠে পড়েন। পরে স্বেচ্ছাসবেকরা তাদের বুঝিয়ে নিচে নামিয়ে দেন এবং জুতা খুলে বেদিতে ওঠার আহ্বান জানান।

সিলেট মহানগর বিএনপির আহ্বায়ক আব্দুল কাইয়ুম জালালীর পংকীর সভাপতিত্বে ও সদস্য সচিব মিফতাহ্ সিদ্দিকী’র পরিচালনায় বিশেষ অতিথির বক্তব্য রাখেন- বেগম খালেদা জিয়ার চেয়ারপার্সের উপদেষ্টা ড.এনামুল হক চৌধুরী, চেয়ারপার্সনের উউপদেষ্টা খন্দকার আব্দুল মুক্তাদির, বিএনপি কেন্দ্রীয় নির্বাহী কমিটির সাংগঠনিক সম্পাদক ডা. শাখাওয়াত হাসান জীবন, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, কেন্দ্রীয় কমিটির সহ-সাংগঠনিক সম্পাদক ও সাবেক এমপি কলিম উদ্দিন মিলন, কেন্দ্রীয় সদস্য ডা: শাহরিয়ার হোসেন চৌধুরী, সিলেট জেলা বিএনপির আহ্বায়ক কামরুল হুদা জায়গীরদার, বিএনপির কেন্দ্রীয় সদস্য ও যুবদলের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক নুরুল ইসলাম নয়ন, কৃষকদলের কেন্দ্রীয় সভাপতি মামুনুর রশিদ খান, মহানগর বিএনপির সাবেক সভাপতি নাসিম হোসাইন, সাবেক সাধারণ সম্পাদক বদরুজ্জামান সেলিম, সিলেট মহানগর বিএনপির যুগ্ম আহ্বায়ক হুমায়ুন কবির শাহিন, কাউন্সিলর ফরহাদ চৌধুরী শামীম, এডভোকেট হাবিবুর রহমান হাবিব, সৈয়দ মিসবাহ উদ্দিন, সুদীপ রঞ্জন সেন বাপ্পু, এডভোকেট রোকসানা বেগম শাহনাজ, নজিবুর রহমান নজিব, সৈয়দ মঈনউদ্দিন সোহেল, সদস্যবৃন্দের মধ্যে আমির হোসেন, মাহবুব কাদির শাহী, আতিকুর রহমান সাবু, হুমায়ুন আহমদ মাসুক, নুরুল আলম সিদ্দীকি খালেদ, মুর্শেদ আহমদ মুকুল, আফজল উদ্দিন, মাহবুব চৌধুরী, আবুল কালাম, যুবদলের কেন্দ্রীয় সহ-সভাপতি আনসার উদ্দিন, শ্রমিক দলের কেন্দ্রীয় সাংগঠনিক সম্পাদক সুরমান আলী, মহানগর সভাপতি ইউনুস মিয়া, মহানগর স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক আব্দুল ওয়াহিদ সোহেল, মহানগর ছাত্রদলের সভাপতি সুদীপ জ্যোতি এষ, জাসাস মহানগরের আহ্বায়ক তাজ উদ্দিন মাসুম, মহানগর মৎস্যজীবী দলের আহ্বায়ক জাহাঙ্গীর আহমদ, কৃষকদলের যুগ্ম-আহ্বায়ক হাবিবুর রহমান।

উপস্থিত ছিলেন- সিলেট জেলা জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের আহ্বায়ক আব্দুল আহাদ খান জামাল, কৃষকদল আহ্বায়ক শহীদ আহমদ মহানগর যুবদলের সদস্য সচিব শাহ্ নেওয়াজ বখত চৌধুরী তারেক, জেলা স্বেচ্ছাসেবক দলের সদস্য সচিব দেওয়ান জাকির হোসেন খান, জেলা ছাত্রদলের সভাপতি আলতাফ হোসেন সুমন, মহানগর ছাত্রদলের সাধারণ সম্পাদক ফজলে এহসান রাব্বী, জেলা ছাত্রদলেল সাধারণ সম্পাদক দিলোয়ার হোসেন নাদিম প্রমুখ।