• মার্চ ৩, ২০২২
  • হবিগঞ্জ
  • 89
হবিগঞ্জের বিপনিবিতানে ডাকাতির মামলার প্রধান আসামি প্রসেনজিত গ্রেপ্তার

হবিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ হবিগঞ্জের স্বনামধন্য বিপনিবিতান ‘নবী স্টোরে’ দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনার প্রধান আসামি প্রসেনজিত গোপকে গ্রেপ্তার করেছে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানা পুলিশ । বৃহস্পতিবার (৩ মার্চ ) তাকে হবিগঞ্জ সদর উপজেলার ২নং রিচি ইউনিয়নের নারায়নপুর গ্রামে তার নিজ বাড়ি থেকে গ্রপ্তার করে আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরণ করা হয়েছে। গ্রেপ্তারকৃত প্রসেনজিতের কাছ থেকে প্রায় ১ লক্ষ টাকার কাপড় চোপড় উদ্ধার করা হয়েছে।

পুলিশ জানায়, গত ২৬ জানুয়ারি ২০২২ হবিগঞ্জের স্বনামধন্য বিপনিবিতান ‘নবী স্টোরে’ দুর্ধর্ষ ডাকাতির ঘটনা ঘটে। রাত ১১টার দিকে মার্কেটের পাহারাদারকে অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে হবিগঞ্জ পৌরসভার ঘাটিয়া বাজার এলাকায় উক্ত ডাকাতির ঘটনা সংঘটিত হয়। এই সময় ডাকাতদল দোকারে ক্যাশ বাক্স থেকে নগদ ১ লক্ষ ৪৭ হাজার টাকা ও দোকান থাকা প্রায় ৩ লক্ষ টাকার মালামাল ডাকাতি করে। এই ডাকাতির ঘটনায় রোববার (২৭ জানুয়ারি ) হবিগঞ্জ সদর মডেল থানায় অজ্ঞাতনামা ১০ থেকে ১২জনকে আসামি করে মামলা দায়ের করেছেন বিপনিবিতান নবী স্টোরের মালিক মো. হেলাল উদ্দিন।

মামলার এজহার সূত্রে জানা যায়, হবিগঞ্জের ঘাটিয়া বাজারে নবী ষ্টোর নামক কাপড়ে দোকানে প্রতিদিন লক্ষাধিক টাকার পণ্য বিক্রয় হয়। দোকানের মালিক কয়েকদিন পূর্বে দোকানে প্রায় ৩ লক্ষাধিক টাকার শীতের কাপড়সহ বিভিন্ন ধরনের মালামাল তুলেন। ঘটনার দিন রাত ৯টায় দোকান বন্ধ করে বাসায় চলে যান মালিক মো. হেলাল উদ্দিন। এই মার্কেটে প্রায় সব দোকান ৯টা থেকে ১০ টার দিকে বন্ধ করা হয়। উক্ত মার্কেটে পাহারাদারকে অজ্ঞাতনামা ১০ থেকে ১২ জন ডাকাত অস্ত্রের মুখে জিম্মি করে এবং তাকে মারপিট করে হাত-পা বেঁধে ফেলে। এই সময় ডাকাতদল নবী স্টোরের ৪টি তালা ভেঙ্গে দোকানে প্রবেশ করে। দোকানে প্রবেশ করে ডাকাতদলের প্রথমে দুটি সিসি ক্যামেরা ভেঙ্গে ফেলে। এসময় সব ডাকাতের মুখে কাপড় বাঁধা ছিল। ডাকাতদল তখন দোকানের ক্যাশ বাক্স থেকে নগদ ১ লক্ষ ৪৭ হাজার টাকা ও দোকান থাকা প্রায় ৩ লক্ষ টাকার মালামাল নিয়ে যায়। এরপর রাত ৩টায় মার্কেটের পাহারাদারে কলে দোকান মালিক জানতে পারেন ডাকাতির ঘটনা।

পাহারাদারের বরাত দিয়ে দোকান মালিক মো. হেলাল উদ্দিন বলেন, এই মার্কেটে আমার দোকানে সবচেয়ে ভাল বিকিকিনি হয়। এটা টার্গেট করে পরিকল্পিত ভাবে এই ডাকাতি করা হয়েছে। ডাকাতরা অস্ত্রের মুখে মার্কেটের পাহারাদারকে বেঁধে আমার দোকানে ডাকাতি করে। রাত ৩টায় ডাকাতদল চলে যাওয়ার পর উক্ত পাহারাদার কোনমতে তার হাত-পায়ের বাধন খুলে মুক্ত হইয়া প্রথমে আমাকে ফোন দিয়ে উক্ত ঘটনা জানাইলে আমি দোকানে আসি। পরবর্তীতে আমি হবিগঞ্জ সদর মডেল থানায় খবর দিলে পুলিশ এসে ঘটনাস্থল পরিদর্শন করে ও আমার দোকানের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ চেক করেন। সিসি ক্যামেরার ফুটেজ ১০ থেকে ১২ জন ডাকাতদের উপস্থিতি দেখা যায়।

এ ব্যাপারে হবিগঞ্জ সদর মডেল থানার ওসি মো. মোহাম্মদ ইকবাল হোসেন বলেন, আমরা ঘটনাস্থল পরিদর্শন করেছি। দোকানের সিসি ক্যামেরার ফুটেজ সংগ্রহ করেছি। যেহেতু ডাকাতদের মুখ বাঁধা ছিল তাই প্রাথমিকভাবে কাউকে সনাক্ত করা যায়নি। তবে আমরা দ্রুত তদন্ত সাপেক্ষে ডাকাতদের খুঁজে বের করে মামলার ১নং প্রসেনজিত গোপকে গ্রেপ্তারকে গ্রেপ্তার করি। উক্ত আসামীর নিকট হতে প্রায় ১ লক্ষ টাকার কাপড় চোপড় উদ্ধার করা হয়। আসামীকে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি গ্রহনের জন্য আবেদন করি এবং আদালতের মাধ্যমে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে।