• এপ্রিল ৮, ২০২২
  • জাতীয়
  • 243
বাংলাদেশি স্বেচ্ছাসেবীর প্রয়োজন নেই: রাশিয়া

নিউজ ডেস্কঃ ‘ইউক্রেনে সামরিক অভিযান শুরুর পর রাশিয়ান সামরিক বাহিনীর হয়ে যুদ্ধক্ষেত্রে যেতে আগ্রহীদের স্বেচ্ছাসেবক হওয়ার সুযোগ দেয় রাশিয়া। ওই সময় বাংলাদেশ থেকেও অনেকে স্বেচ্ছাসেবী হওয়ার সুযোগ চেয়ে আবেদন করে। কিন্তু দেশটির সশস্ত্র বাহিনী সফলতার সঙ্গে বিশেষ সামরিক অভিযান পরিচালনায় সক্ষম হওয়ায় বাংলাদেশ থেকে কোনো স্বেচ্ছাসেবকের প্রয়োজন নেই।’

ঢাকায় রাশিয়ার দূতাবাস বৃহস্পতিবার তাদের ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে এসব কথা বলেছে।

রাশিয়া গত ২৪ ফেব্রুয়ারি ইউক্রেনে বিশেষ সামরিক অভিযান শুরু করে। বন্ধুপ্রতীম দোনেৎস্ক ও লুগানস্ক প্রজাতন্ত্রকে সহযোগিতার পাশাপাশি ইউক্রেনে রুশভাষী জনগোষ্ঠীকে রক্ষা করাই এ অভিযানের মূল উদ্দেশ্য বলে জানিয়েছে ঢাকায় দেশটির দূতাবাস।

এর আগে ১১ মার্চ রাশিয়ার হয়ে যুদ্ধ ক্ষেত্রে যেতে ইচ্ছুক স্বেচ্ছাসেবী নিয়োগের একটি প্রস্তাব প্রেসিডেন্ট ভ্লাদিমির পুতিনের কাছে রাখেন রাশিয়ান ফেডারেশনের প্রতিরক্ষামন্ত্রী সের্গেই শোইগু। পুতিন তা অনুমোদন করেন।

এরপর বাংলাদেশি নাগরিকদের কাছ থেকে অসংখ্য চিঠি পেয়েছে বলে জানায় ঢাকায় রাশিয়ার দূতাবাস। চিঠিতে ইউক্রেন ও ডনবাসের মুক্তি আন্দোলনে অবৈতনিকভাবে কাজ করতে তাদের ইচ্ছার কথা জানানো হয়।

দূতাবাস উল্লেখ করেছে, পূর্ব ইউরোপে ন্যাটোকে প্রত্যাখ্যান এবং ইউক্রেনে নব্য-নাৎসিবাদের অবসানে রাশিয়ান সরকারের পদক্ষেপের পক্ষে বাংলাদেশিদের অনেকের অবস্থান আনন্দদায়ক। ফেসবুক পোস্টে রাশিয়ার পক্ষে বাংলাদেশিদের যুদ্ধক্ষেত্রে যাওয়ার ইচ্ছাকেও রাশিয়া সাধুবাদ জানায়।
বাংলাদেশি স্বেচ্ছাসেবীর প্রয়োজন নেই: রাশিয়া

দূতাবাস লিখেছে, ‘রাশিয়ান সশস্ত্র বাহিনী সফলভাবে নির্ধারিত লক্ষ্য ও উদ্দেশ্য বাস্তবায়নে পরিকল্পনামাফিক বিশেষ সামরিক অভিযান পরিচালনা করছে। তাই অপারেশনে যোগ দিতে বাংলাদেশ থেকে স্বেচ্ছাসেবকের প্রয়োজন নেই।’

তবে স্বেচ্ছাসেবী হতে বাংলাদেশ থেকে কতজন আবেদন করেছে এবং আদৌ কোনো স্বেচ্ছাসেবী নেয়া হয়েছে কি-না সে বিষয়ে দূতাবাস কোনো তথ্য জানায়নি।