• এপ্রিল ১০, ২০২২
  • লিড নিউস
  • 205
সংঘর্ষে নিহত পল্লী চিকিৎসকের দাফন সম্পন্ন

নিউজ ডেস্কঃ সিলেটে দু’পক্ষের সংঘর্ষে নিহত পল্লী চিকিৎসক মো. নিজাম উদ্দিনের (৪৫) জানাযার নামাজ সম্পন্ন হয়েছে।

রবিবার (১০ এপ্রিল) দুপুর আড়াইটার দিকে সাহেবেরবাজার শাহী ঈদগাহে জানাযার নামাজ অনুষ্ঠিত হয়। এতে জনপ্রতিনিধিসহ দল-মত নির্বিশেষে সর্বস্তরের হাজার হাজার মানুষ উপস্থিত ছিলেন।

জানাযা শেষে পারিবারিক কবরস্থানে লাশ দাফন করা হয়। এর আগে ময়না তদন্ত শেষে নিজাম উদ্দিনের মরদেহ পরিবারের কাছে হস্তান্তর করা হয়।

গতকাল শনিবার (৯ এপ্রিল) ভোর ছয়টার দিকে উপজেলার খাদিমনগর ইউনিয়নের সাহেবেরবাজার এলাকার সাতগাছি হাওরে বিরোধপূর্ণ জমিতে ধান কাটাকে কেন্দ্র করে দুপক্ষের সংঘর্ষে নিজাম উদ্দিন নিহত হন। তিনি সাহেবেরবাজার এলাকার ঘোড়ামারা গ্রামের মরহুম বশির উদ্দিনের ছেলে।

স্থানীয় সূত্র জানায়, সাহেবেরবাজার এলাকার সাতগাছি গ্রামের রাস্তা সংলগ্ন জমি নিয়ে নিজাম ও নয়ন মিয়ার লোকজনের বিরোধ চলে আসছিল। সালিশের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী দু’পক্ষই ওই জমি চাষাবাদ থেকে বিরত থাকবেন। আর সালিশকারীরা নিজেদের মানুষ দিয়ে বিরোধপূর্ণ জমি চাষাবাদ করান। তাদের ভাষ্যমতে, বিচারে জমির মালিকানা যে পাবে, তারা ফসল নেবেন।

এ অবস্থায় শনিবার সকালে অর্ধ শতাধিক লোক নিয়ে নয়ন মিয়ার পক্ষের লোকজন বিরোধপূর্ণ জমির পাকা ধান কাটতে গেলে পল্লী চিকিৎসক আকরাম উদ্দিন ও তার ভাই পল্লী চিকিৎসক নিজাম উদ্দিন তার আত্মীয়-স্বজনদের নিয়ে ধান কাটতে বাধা দিলে সংঘর্ষের ঘটনা ঘটে। এ সময় প্রতিপক্ষের লোকজন নিজাম উদ্দিনের মাথায় ধারালো অস্ত্র নিয়ে আঘাত করলে তিনি মাটিতে লুটিয়ে পড়েন। পরে তাকে উদ্ধার করে সিলেট ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে নেওয়া হলে চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।

এ ঘটনায় কমপক্ষে ১৫ জন আহত হওয়ার খবর পাওয়া গেছে। তাদের মধ্যে আকরাম উদ্দিন (৪৫) ফয়ছল (২৬), ফয়েজ (৫০), ছগন (৫৫), ইসলাম (২৮), সালমান (২৫), জাকির হোসেনের (৩৫) অবস্থা গুরুতর বলে জানা গেছে।

সংঘর্ষ ও হত্যাকাণ্ডের ঘটনায় চারজনকে আটক করা হয়েছে। আটকরা হলেন- ওই গ্রামের আজিজুর রহমান (৪২), ছয়ফুল আলম (৪০), মকবুল মিয়া (৪১) ও সমছুল আলম (৪২)।

এ ঘটনায় এখনও মামলা দায়ের করা হয়নি। এ বিষয়ে সিলেট মহানগর পুলিশের এয়ারপোর্ট থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) খান মো. মাইনুল জাকির বলেন, এখনও মামলা দায়ের করা হয়নি। ময়না তদন্ত শেষে দাফন সম্পন্ন হয়েছে। নিহতের পরিবারের পক্ষ থেকে মামলা দায়েরের প্রস্তুতি চলছে।

তিনি বলেন, এ পর্যন্ত ৪ জনকে আটক করা হয়েছে। হত্যাকাণ্ডে জড়িত সবাইকে গ্রেফতারে চেষ্টা চালাচ্ছে পুলিশ।