• এপ্রিল ২৩, ২০২২
  • জাতীয়
  • 254
বিএনপির অনুষ্ঠানে হামলা, পুলিশের পিটুনি খেলেন আ. লীগ নেতাকর্মীরা

নিউজ ডেস্কঃ ময়মনসিংহের ঈশ্বরগঞ্জে বিএনপির ইফতার পণ্ড করতে গিয়ে পুলিশের পিটুনির শিকার হয়েছেন আওয়ামী লীগ ও এর সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা।

শনিবার বিকেলে উপজেলার চরনিখলা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে এ হামলার ঘটনা ঘটে।

স্থানীয় বিএনপির নেতাকর্মীরা জানান, পৌর এলাকার চরনিখলা উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষের অনুমতি নিয়ে ইফতারের আয়োজন করে উপজেলা বিএনপি। সে ইফতার আয়োজনে বিকেলে যুবলীগ, স্বেচ্ছাসেবক লীগ ও ছাত্রলীগের নেতাকর্মীরা দেশীয় অস্ত্র নিয়ে গেলে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়া হয়।

পরে বিএনপি নেতাকর্মীরা আবারও অনুষ্ঠান শুরু করলে হামলা করে আওয়ামী লীগ ও তার সহযোগী সংগঠনের নেতাকর্মীরা। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে যায় পুলিশ। তারা হামলাকারীদের ধাওয়া দিয়ে পিটুনি দেয়।

উপজেলা বিএনপির সাধারণ সম্পাদক হারুন অর রশিদ বলেন, ‘বিদ্যালয় কর্তৃপক্ষ ছাড়াও উপজেলা প্রশাসন ও থানায়ও জানানো হয়েছিল। আমাদের উপর বৃষ্টির মতো পাথর নিক্ষেপ করা হয়েছে। এতে আমাদের পাঁচ কর্মী আহত হয়েছেন।’

তিনি বলেন, ‘যারা হামলা করেছে তাদের আওয়ামী লীগ বলব না, এরা সন্ত্রাসী।’

উপজেলা স্বেচ্ছাসেবক লীগের যুগ্ম আহ্বায়ক সামি উসমান গণি বলেন, ‘বিএনপির নেতারা সরকারবিরোধী বক্তব্য দিচ্ছিল। এ জন্য স্থানীয় নেতাকর্মীরা আসলে পুলিশ আমাদের উপর হামলা করে। এতে ছাত্রলীগ নেতা আবু রায়হান, মৎস্যজীবী লীগ শামীম মিয়া, ছাত্রলীগের তুষার, শফিকুল ইসলাম ও আবু সাঈদসহ অন্তত ১০ জন আহত হয়েছেন।’

উপজেলা যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক জুনায়েদুল ইসলাম ভুঁইয়া সুমন বলেন, ‘বিএনপি উসকানিমূলক বক্তব্য দেয়ায় নেতাকর্মীরা মিছিল নিয়ে গিয়েছিল। তখন আমাদের কোনো নেতাকর্মী কারও উপর আঘাত করেনি। কিন্তু বিএনপির নেতাকর্মীরা বিশৃঙ্খলা সৃষ্টি করে। তখন আমাদের নেতাকর্মীরাও ক্ষিপ্ত হলে পুলিশ শুধুমাত্র আমাদের নেতাকর্মীদের ওপরই আক্রমণ চালায়, এটি দেখে হতবাক হয়েছি।’

ঈশ্বরগঞ্জ থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) মো. আবদুল কাদের মিয়া বলেন, ‘ইফতার মাহফিলে ভাঙচুরের খবর পেয়ে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনে। এ ঘটনায় কেউ আহত হওয়ার খবর আমার জানা নেই। বর্তমানে পরিস্থিতি শান্ত আছে। এ ছাড়া যেকোনো সময় অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে পুলিশ সতর্ক অবস্থানে রয়েছে।’