• এপ্রিল ২৪, ২০২২
  • শীর্ষ খবর
  • 257
জগন্নাথপুরে সংঘর্ষে বাবার মৃত্যু: মায়ের কান্না দেখে কাঁদছে যমজ শিশুরাও

জগন্নাথপুর প্রতিনিধিঃ দুই বছরের যমজ সন্তানকে কোলে নিয়ে কাঁদছেন তাদের মা। মায়ের কান্না দেখে সন্তানেরাও কাঁদছে। তাদের কান্নায় কাঁদছেন প্রতিবেশী ও উপস্থিত আত্মীয়স্বজন। গতকাল শনিবার সন্ধ্যায় ময়নাতদন্তের পর ওই শিশুদের বাবার লাশ বাড়িতে এলে এমন হৃদয়বিদারক দৃশ্য দেখা যায় সুনামগঞ্জের জগন্নাথপুর উপজেলার বাড়ি জগন্নাথপুর এলাকায়। গত বৃহস্পতিবার বিকেলে প্রতিবেশী স্বজনের সঙ্গে মারামারিতে গুরুতর আহত হওয়ার পর গতকাল ভোরে মারা যান ওই শিশুদের বাবা মাছুম মিয়া।

পুলিশ, এলাকাবাসী ও স্বজনদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, মাছুম মিয়ার পরিবার ও তাঁর চাচাতো ভাই হাসান আহমেদের পরিবারের মধ্যে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে মনোমালিন্য চলছিল। বৃহস্পতিবার বিকেলে হাসান মিয়ার পরিবারের লোকজন মাসুম মিয়ার মা রিনা বেগম ও বোন মাছুমা বেগমকে অশ্লীল ভাষায় গালিগালাজ করেন। খবর পেয়ে জগন্নাথপুর বাজার থেকে বাড়ি এসে মাছুম মিয়া এর প্রতিবাদ করেন। এ সময় উভয় পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ বাধে। বাদানুবাদের একপর্যায়ে হাসান আহমেদের লোকজনের হামলায় মাছুম মিয়া মাথায় গুরুতর আঘাত পান। এরপর তাঁকে সিলেট এম এ জি ওসমানী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে পাঠানো হয়। সেখানে চিকিৎসাধীন অবস্থায় গতকাল ভোরে তাঁর মৃত্যু হয়। এরপর গতকাল বিকেলে মাছুম মিয়ার লাশ ময়নাতদন্তের পর নিজ বাড়ি জগন্নাথপুরে আনা হয়।

নিহত মাছুম মিয়ার স্ত্রী শাবলী বেগম বলেন, ২০১৯ সালের ৮ আগস্ট মাছুম মিয়াকে ভালোবেসে বিয়ে করেন তিনি। তাঁদের দুই বছরের যমজ ছেলে আছে। স্বামী হারানোর কথা বলতে গিয়ে বারবার মুর্ছা যাচ্ছিলেন তিনি।

জগন্নাথপুর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা মিজানুর রহমান বলেন, তুচ্ছ ঘটনাকে কেন্দ্র করে আত্মীয় দুই পরিবারের মধ্যে মারামারি ঘটনায় মাছুম মিয়ার মৃত্যু হয়। তাঁর মা রীনা বেগম বাদী হয়ে ১০ জনের বিরুদ্ধে হত্যা মামলা করেছেন। পুলিশ অভিযান চালিয়ে হাসান আহমেদ (২৪), তাঁর ভাই হোসাইন আহমেদ (২০), মা সাহেদা বেগম (৩৮), দাদা মনফর আলীকে (৭০) গ্রেপ্তার করেছে। অন্য আসামিদের গ্রেপ্তারের চেষ্টা চলছে।