• মে ৫, ২০২২
  • শীর্ষ খবর
  • 286
বর্তমান প্রজন্ম ভাগ্যবান, এখন খুব ভালো সময়: পরিকল্পনামন্ত্রী

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশের অগ্রগতি কেউ থামাতে পারবে না বলে মন্তব্য করেছেন পরিকল্পনামন্ত্রী এম এ মান্নান। তিনি বলেছেন, এটা একটা চমৎকার সময়। বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে। বর্তমান প্রজন্ম ভাগ্যবান, এখন খুব ভালো সময়। বাংলাদেশ আরও এগিয়ে যাবে।

বৃহস্পতিবার সুনামগঞ্জে পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় ছাত্র সংসদ আয়োজিত আলোচনা, সংবর্ধনা ও সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন। বিকেলে সুনামগঞ্জ পৌর শহরের হাসন রাজা মিলনায়তনে এই অনুষ্ঠান হয়। অনুষ্ঠানে এ বছর দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয়ে ভর্তি হওয়া সুনামগঞ্জের শিক্ষার্থীদের সংবর্ধনা দেওয়া হয়।

শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে পরিকল্পনামন্ত্রী বলেন, ‘এখন তোমাদের সামনে অবারিত সুযোগ। সরকার শিক্ষার উন্নয়নে নানাভাবে কাজ করছে। প্রতিটি জেলায় বিশ্ববিদ্যালয় হচ্ছে। তাই নিজেকে তৈরি করতে হবে। কখনো হতাশ হওয়া যাবে না। জীবনকে উপভোগ করতে হবে। মনে রাখতে হবে, জীবন একটাই।’

অনুষ্ঠানে এম এ মান্নান আরও বলেন, ‘শেখ হাসিনার সরকার দেশে পরিবর্তনের জন্য কাজ করছে। তাঁর চেষ্টাতেই দেশে ইতিবাচক পরিবর্তন এসেছে। আমাদের অভ্যন্তরীণ কিছু সমস্যা আছে। এটাতে কাউকে দোষারোপ করছি না। তবে এসব সমস্যা কাটিয়ে আমরা দেশকে এগিয়ে নিয়ে যাচ্ছি। আমরা দেশের জন্য, বিশ্ব মানবতার জন্য কাজ করছি।’

বিশেষ অতিথির বক্তব্য দেন সুনামগঞ্জ-৪ আসনের (সুনামগঞ্জ সদর ও বিশ্বম্ভরপুর) সাংসদ পীর ফজলুর রহমান মিসবাহ, বাংলাদেশ পাবলিক সার্ভিস কমিশনের (পিএসসি) সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক, সুনামগঞ্জ জেলা পরিষদের প্রশাসক নুরুল হুদা মুকুট, বাংলাদেশ জাতীয় মানবাধিকার কমিশনের সদস্য জেসমিন আরা বেগম, জেলা প্রশাসক মো. জাহাঙ্গীর হোসেন, পুলিশ সুপার মো. মিজানুর রহমান, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক এনামুল কবির ইমন, শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ের সহযোগী অধ্যাপক মো. ফখর উদ্দিন প্রমুখ।

আয়োজক সংগঠনের সভাপতি খালেদ মাহমুদ সাইফুল্লাহর সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক শাহ রিয়াজ হাসান নাবিলের সঞ্চালনায় অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য দেন সংগঠনের সমন্বয়কারী আহনাফ তাহমিদ। এ ছাড়া বক্তব্য দেন সংগঠনের সাবেক সভাপতি আবু সাদাত সায়েম, মাহমুদুর রহমান তাহমিদ ও আশফাক জাহান তানজিম।

পাবলিক সার্ভিস কমিশনের সাবেক চেয়ারম্যান মোহাম্মদ সাদিক শিক্ষার্থীদের উদ্দেশে বলেন, শিক্ষার উদ্দেশ্য হলো আলোকিত মানুষ হওয়া। চারদিকের অন্ধকার দূর করা। মা, মাটি ও মাতৃভূমিকে জানা। মায়ের পাশে থাকা। তিনি বলেন, শুধু বিসিএসে উত্তীর্ণ হওয়া যেন জীবনের লক্ষ্য না হয়। এটা হলে ভালো, না হলে কোনো সমস্যা নেই। তোমাদের জন্য পুরো পৃথিবীর দরজা খোলা আছে।

অনুষ্ঠানে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের উন্নয়ন অধ্যয়ন বিভাগ থেকে স্নাতকোত্তর চূড়ান্ত পরীক্ষায় প্রথম শ্রেণিতে প্রথম হওয়া সুনামগঞ্জের কৃতী শিক্ষার্থী হুমায়রা আনজুমী নাবিলাকে সম্মাননা স্মারক দেওয়া হয়।