• জুন ১৬, ২০২২
  • শীর্ষ খবর
  • 227
বলাৎকারের অভিযোগে মাদ্রাসা সুপারকে কান ধরে ওঠবস

নিউজ ডেস্কঃ সিলেটের ওসমানীনগরে এক ছাত্রকে বলাৎকারের অভিযোগে মাদ্রাসার সুপারকে কান ধরে ওঠবস করানো হয়েছে।

ওসমানীনগরের নুরপুর হাফিজিয়া সুন্নিয়া মাদ্রাসায় সালিশ ডেকে গত রোববার আব্দুল কাদিরকে এ শাস্তি দেয় মাদ্রাসা কমিটি ও স্থানীয় লোকজন।

আব্দুল কাদিরের বাড়ি সিলেটের কানাইঘাট উপজেলার লন্তীর মাটি গ্রামে। কান ধরে ওঠবস করানোর পাশাপাশি তাকে ২২ হাজার টাকা জরিমানা করে মুচলেকা নেয়া হয় এবং বরখাস্ত করা হয় মাদ্রাসা সুপারের পদ থেকে।

সম্প্রতি তাকে কান ধরে ৩০ বার ওঠবস করানোর ভিডিওটি ফেসবুকে ভাইরাল হয়।

মাদ্রাসার শিক্ষকরা জানান, গত শনিবার আব্দুল কাদির হিফজ বিভাগের এক আবাসিক ছাত্রকে বলাৎকার করেন। ১১ বছরের ওই শিশু বিষয়টি পরিবারকে জানালে তারা মাদ্রাসা কমিটির কাছে অভিযোগ করেন। সেই সঙ্গে শিশুটিকে একটি হাসপাতালে ভর্তি করা হয়।

মাদ্রাসা কমিটি স্থানীয় কয়েকজনকে নিয়ে রোববার সালিশ ডাকে। সালিশে তাকে কান ধরে ওঠবস করানো হয় ও শিশুটির চিকিৎসার খরচের জন্য ২২ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়।

মাদ্রাসা কমিটির সভাপতি আপ্তাব আলী বলেন, ‘সালিশের সিদ্ধান্ত অনুযায়ী মুচলেকা নিয়ে আব্দুল কাদিরকে বরখাস্ত করা হয়েছে। সালিশের পর তিনি মাদ্রাসা ছেড়ে চলে গেছেন।’

এ বিষয়ে কথা বলার জন্য আব্দুল কাদিরকে একাধিকবার কল দেয়া হলেও তিনি ধরেননি।

কয়েকজন শিক্ষকের অভিযোগ, পুলিশ বিষয়টি জেনেও কোনো ব্যবস্থা নেয়নি।

এ বিষয়ে ওসমানীনগর থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) এসএম মাঈন উদ্দিন বলেন, ‘রোববার রাতে বলাৎকারের খবর পেয়ে আমি সঙ্গে সঙ্গে মাদ্রাসায় পুলিশ পাঠাই। সেখানে ওই শিক্ষক বা ছাত্র কাউকে পাওয়া যায়নি। এ বিষয়ে কেউ থানায় লিখিত অভিযোগ দিলে আমরা আইনি ব্যবস্থা নেব।’