• জুন ২১, ২০২২
  • শীর্ষ খবর
  • 199
প্রধানমন্ত্রীর বন্যা পরির্দশন : নিজস্ব তহবিল থেকে সিলেটে অনুদান

নিউজ ডেস্কঃ সিলেটে বন্যার্ত মানুষের সহায়তায় নিজস্ব তহবিল থেকে অনুদান প্রদান করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার (২১ জুন) দুপুরে সিলেট সার্কিট হাউসে মাঠপ্রশাসনের কর্মকর্তা এবং আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় শেষে সিলেট ও সুনামগঞ্জের জেলা প্রশাসকের হাতে অনুদানের চেক তুলে দেন প্রধানমন্ত্রী।

মঙ্গলবার সিলেট, সুনামগঞ্জ ও নেত্রকোনা জেলার বন্যা দুর্গত এলাকা পরিদর্শন করেছেন প্রধানমন্ত্রী। সকাল ৮টায় রাজধানীর তেজগাঁওয়ের পুরাতন বিমানবন্দর থেকে হেলিকপ্টারযোগে বন্যা দুর্গত এলাকার উদ্দেশ্যে রওনা দেন তিনি। হেলিকপ্টারে করে বন্যা পরিস্থিতি অবলোকন করেন প্রধানমন্ত্রী। এসময় তাঁকে বহনকারী হেলিকপ্টার ‘লো ফ্লাই মোডে’ বন্যাকবলিত এলাকাগুলোর উপর দিয়ে উড়ে যায়।

পরিদর্শন শেষে সকাল ৯টা ৫৫ মিনিটে শেখ হাসিনা সিলেট ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে পৌঁছেন। এরপর তিনি লালগালিচা দিয়ে বিমানবন্দরের ভিআইপি লাউঞ্জে প্রবেশ করেন। সকাল ১০টায় সিলেট সার্কিট হাউসের উদ্দেশে যাত্রা করেন প্রধানমন্ত্রী। সেখানে বিভাগীয় ও জেলা প্রশাসনের কর্মকর্তা এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতৃবৃন্দের সঙ্গে মতবিনিময় করেন।

মতবিনিময়কালে বক্তব্য রাখতে গিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘বন্যা আসাটা, আমার মনে হয়, এটা ঘাবড়ানোর কিছু না। বাংলাদেশের মানুষকে সব সময় এ ধরনের প্রাকৃতিক দুর্যোগের সঙ্গে বসবাস করতে হবে- এই মানসিকতা থাকতে হবে, এই বিশ্বাস থাকতে হবে। সে কারণে আমাদের অবকাঠামোগত যত উন্নয়ন হবে, সেগুলো কিন্তু সে কথাটা মাথায় রেখে হবে।’

খাদ্যগুদাম ও সার রক্ষা করার ওপর জোর দিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘এমন ব্যবস্থা নেয়া যাতে কোনোভাবে খাদ্যগুদামে পানি না ঢোকে, আবার খাদ্যগুদাম থেকে খাদ্য যেন বের করা যায়- এই সুবিধাটা রাখা। এ ধরনের প্রস্তুতিমূলক কাজ কিন্তু আমাদের সব সময় করে রাখতে হবে।’

শেখ হাসিনা বলেন, ‘সিলেটের বন্যা শেষ না। এই পানি ধাপে ধাপে মধ্যাঞ্চলে যাবে, তারপর দক্ষিণাঞ্চলে পৌঁছাবে। কাজেই আমাদের কিন্তু দুর্যোগ মোকাবিলায় সব সময় প্রস্তুতি নিয়েই থাকতে হবে।’

সিলেট সফরের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘আমি এ জন্য আসছি যে- এতগুলো মানুষ এভাবে আটকে পড়া, এ রকম দুর্যোগ। আমাদের তরফ থেকে যা যা করণীয়, আমরা করে যাচ্ছি। খাদ্য, ওষুধ অন্য সবকিছুরই ব্যবস্থা যত লাগে সেটা আমরা দিতে পারব, দেব।’

পানি নামার পর করণীয় সম্পর্কে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘যেখানে যেখানে পানি নামবে সঙ্গে সঙ্গে ব্লিচিং পাউডার ছিটিয়ে দিতে হবে, যাতে রোগের প্রাদুর্ভাবটা না হয়। সেদিকে সবাইকে লক্ষ রাখতে হবে। সঙ্গে সঙ্গে ময়লাগুলো পরিষ্কার করা।’

এ কাজে দলের নেতা-কর্মীদের এগিয়ে আসার নির্দেশ দেন প্রধানমন্ত্রী।

প্রাণহানি, ফসলহানি, গবাদিপশুর ক্ষয়ক্ষতির দিকটি মাথায় নিয়েও বন্যার সুফলটাও তুলে ধরেন সরকারপ্রধান।

তিনি বলেন, ‘বন্যাটা হলো, এই যে আমাদের কষ্ট, ক্ষতি-এটা ঠিক। আবার আমাদের লাভও আছে। বাংলাদেশ ভূমিকম্পপ্রবণ এলাকা। ফলে এখানে যদি আমাদের আন্ডারগ্রাউন্ড ওয়াটার বা ভূগর্ভস্থ পানি যদি কমে যায়, ভূমিকম্পের আশঙ্কা বেশি থাকে। কিন্তু ভূগর্ভস্থ পানির লেয়ার যদি ঠিক থাকে, ভূমিকম্প আমাদের ক্ষতি করতে পারবে না। এই বন্যায় আমাদের আন্ডারগ্রাউন্ড রিচার্জ হবে।’

এবার বন্যাটা দেরিতে এসেছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘৯৮ সালের সেই দীর্ঘস্থায়ী বন্যার পর, বন্যা আসলে কিন্তু পরপর এভাবে দু-তিনবার আসে।

‘এবার সিলেট বিভাগে যেটা হলো, পরপর তিনবার বন্যা। এটা কিন্তু অস্বাভাবিক পরিস্থিতি। প্রতিবারই নতুন নতুন জায়গা প্লাবিত হয়েছে, আমাদের ফসল বা যা ক্ষতি হয়েছে। গতকালও আমরা দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা কমিটির মিটিং করে কী কী করণীয় সেই ব্যবস্থাটা আমরা নিয়েছি।’

বৃষ্টির পানি সংরক্ষণেও এ সময় গুরুত্বারোপ করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি বলেন, ‘এই পানিটা তো একদম পরিশুদ্ধ একটা পানি। তা ছাড়া পানি বিশুদ্ধকরণ বন্যার সময় সব থেকে বেশি প্রয়োজন হয়। অনেক সময় পুকুরের পানিও নষ্ট হয়। সে জন্য খাবার পানির ব্যবস্থা করা, ওষুধপত্র ঠিক রাখা, স্যালাইন রাখা। এই পানি যখন নামতে থাকবে, নামতে নামতে সেটা মধ্যাঞ্চলে যাবে। আমরা যারা দক্ষিণাঞ্চলে আমরা পড়ব আরও পরে। কাজেই এটা আমাদের চিরাচরিত নিয়ম।’

হাওর অঞ্চলে রাস্তাঘাট নির্মাণ প্রসঙ্গে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ইতিমধ্যে আমি নির্দেশ দিয়ে দিয়েছি মাটি উঁচু করে ভরাট করে কোনো রাস্তা হবে না। সব এলিভেটেড রাস্তা হবে। এলিভেটেড রাস্তা হলে পরে এগুলো সহসা নষ্ট হয় না। এ রকম দুর্যোগ দেখা গেলে যাতায়াত সুবিধা হয়, সেভাবে করা দরকার।’

নদী ড্রেজিংয়ের পক্ষে নিজের শক্ত অবস্থান ব্যক্ত করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘কুশিয়ারা নদী এর আগে একবার ড্রেজিং করার উদ্যোগ নেয়া হয়েছিল, কিছুটা ড্রেজিং করাও হয়েছে। ওভাবে করলে হবে না। দরকার হচ্ছে আমাদের একবার ক্যাপিটাল ড্রেজিং করার পর প্রতি বছর একটা মেইনটেইনেন্স ড্রেজিং দরকার।’

বন্যার আশঙ্কা আগেই করেছেন জানিয়ে শেখ হাসিনা বলেন, ‘প্রাকৃতিক একটা অবস্থা দেখে কিছুটা আন্দাজ করা যায়। তো সেটা দেখেই কিন্তু আমি সব সময় বলছি যে এবার একটা বড় বন্যা আসবে। ৯৮ সালে আমাদের দেশে বন্যা এসেছিল, সেটা দীর্ঘস্থায়ী এবং ৮৮ সালের বন্যা, বাংলাদেশের প্রাকৃতিক অবস্থা যদি আমি দেখি, ১০/১২ বছর পর এ রকম একেকটা বড় বন্যা আসে। আমাদের প্রস্তুত থাকা দরকার। এখন যেটা হয়েছে, এত বেশি রাস্তাঘাট হয়ে গেছে, আমি শুনলাম যে নৌকার খুব অভাব।’

উদ্ধার তৎপরতায় সেনা-নৌবাহিনীকে মোতায়েন করা হয়েছে জানিয়ে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আওয়ামী লীগের সব নেতা-কর্মীরা যেকোনো দুর্যোগে সাধারণ মানুষের পাশে থাকেন। সরকারে থাকি বা বিরোধী দলে থাকি দুর্গত মানুষের কাছে সবার আগে আওয়ামী লীগ পৌঁছে যায়।’

বন্যার সময় বিদ্যুৎ বন্ধ রাখার কারণও ব্যাখ্যা করেন প্রধানমন্ত্রী। তিনি জানান, বন্যার সময় বিদ্যুতায়িত হবার আশঙ্কা থাকে, তখন আরেকটি দুর্যোগ দেখা দিতে পারে। বন্যাপ্রবণ এলাকায় সবাইকে হারিকেন, মোমবাতি রাখার পরামর্শ দেন তিনি। এছাড়াও প্রাকৃতিক দুর্যোগ বিবেচনায় ল্যান্ডফোন সংযোগগুলো ফের সচল এবং ব্যবহার শুরু করার পরামর্শ দেন প্রধানমন্ত্রী।

মতবিনিময়কালে প্রশাসনের শীর্ষ কর্মকর্তাদের মধ্যে বক্তব্য রাখেন সিলেটের বিভাগীয় কমিশনার ড. মুহাম্মদ মোশাররফ হোসেন, রেঞ্জ ডিআইজি মফিজ উদ্দিন আহম্মেদ ও জেলা প্রশাসক মো. মজিবর রহমান।

এছাড়াও বক্তব্য রাখেন সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি মতিউর রহমান, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের (ভারপ্রাপ্ত) সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী, সুনামগঞ্জ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ব্যারিস্টার এনামুল কবীর ইমন, সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন খান, সহ সভাপতি আশফাক আহমদ, সিলেট সিটি কর্পোরেশনের মেয়র আরিফুল হক চৌধুরী, মহানগর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মুশফিক জায়গীরদার, জেলা যুবলীগের সভাপতি শামীম আহমদ, স্বেচ্ছাসেবক লীগের কেন্দ্রীয় সহ সভাপতি সুব্রত পুরকায়স্থ, জেলা ক্রীড়া সংস্থার সাধারণ সম্পাদক মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিম, মহিলা আওয়ামী লীগ নেত্রী নাজনীন হোসেন, মহানগর যুবলীগ সভাপতি আলম খান মুক্তি, মহানগর ছাত্রলীগের সভাপতি কিশোয়ার জাহান সৌরভ, জেলা ছাত্রলীগের সভাপতি নাজমুল ইসলাম।

এদিকে, সিলেটে বন্যা কবলিত এলাকা পরিদর্শনে এসে শাহজালাল (র.) ও শাহপরানের (র.) মাজার জিয়ারত করেছেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। মঙ্গলবার (২১ জুন) সিলেট সার্কিট হাউসে মতবিনিময় সভা শেষে মাজার জিয়ারতের উদ্দেশ্যে রওয়ানা হন প্রধানমন্ত্রী।

দুপুর ১টা ২৯ মিনিটে হযরত শাহজালালের (র.) মাজার প্রাঙ্গণে প্রবেশ করেন তিনি। এ সময় তিনি জোহরের নামাজ ও মাজার জিয়ারত করেন। দুপুর ১টা ৫০ মিনিটে প্রধানমন্ত্রী মাজার থেকে বের হয়ে যান।

এরপর শাহপরানের (র.) মাজার জিয়ারত শেষে বেলা ২টা ৪০ মিনিটে ওসমানী আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরে গিয়ে পৌঁছান প্রধানমন্ত্রী। সেখান থেকে তাঁকে বহনকারী হেলিকপ্টার ঢাকার উদ্দেশে রওয়ানা দেয়।