• আগস্ট ২৮, ২০২২
  • শীর্ষ খবর
  • 160
ট্রাফিকের ‘হয়রানি’ বন্ধে পরিবহন শ্রমিকদের অবরোধ

নিউজ ডেস্কঃ ট্রাফিক পুলিশের ‘হয়রানির’ প্রতিবাদে সিলেট নগরীর উপশহর পয়েন্টে সড়ক অবরোধ করেছিলেন পরিবহন শ্রমিকরা।

আজ রোববার সকাল সাড়ে ১০টার দিকে এ ঘটনা ঘটে। প্রায় ঘন্টাখানেকের অবরোধে চরম দুর্ভোগে পড়েন সাধারণ মানুষ।

একাধিক সূত্রে জানা গেছে, সাম্প্রতিক সময়ে ট্রাফিক পুলিশ বেশ কঠোর অবস্থানে রয়েছে। কাগজপত্রবিহীন, ফিটনেসবিহীন যানবাহনের বিরুদ্ধে পুলিশ নিয়মিত অভিযান পরিচালনা করছে। মামলাও দেওয়া হচ্ছে। কিছু কিছু ক্ষেত্রে অবৈধ গাড়ি রেকিংও করা হয়।

ট্রাফিক পুলিশের এমন তৎপরতায় পরিবহন শ্রমিকরা ক্ষুব্ধ। তাদের মতে, ট্রাফিক পুলিশ সাম্প্রতিক সময়ে ‘বাড়াবাড়ি’ করছে। কাগজপত্র ঠিক থাকলেও চালকদের হয়রানি করা হচ্ছে। অযথা মামলা দিয়ে ভোগান্তিতে ফেলা হচ্ছে চালকদের।

পরিবহন শ্রমিকরা জানান, হয়রানির বিষয়টি পুলিশ প্রশাসনকে একাধিকবার জানানো হয়েছে। কিন্তু তবুও হয়রানি বন্ধ হয়নি।

সিলেট জেলা ট্রাক পিকআপ কাভার্ডভ্যান শ্রমিক ইউনিয়নের সভাপতি দিলু মিয়া বলেন, ‘ট্রাফিক পুলিশের হয়রানির কোনো শেষ নাই! পয়েন্টে পয়েন্টে পুলিশ! সব কাগজপত্র ঠিক থাকলেও মামলা দেয়। ট্রাক, পিকআপ, অটোরিকশা সব গাড়িকে ধরে তারা। চালকদের সঙ্গে বেয়াদবিও করা হয়।’

তিনি বলেন, ‘আজ সকালে কাচাবাজারে মালামাল আনলোড করে কয়েকটি ট্রাক বেরিয়ে যাচ্ছিল। এর মধ্যে তিন-চারটি গাড়িকে আটকে মামলা দেয় পুলিশ। এতে শ্রমিকরা ক্ষুব্ধ হয়ে ওঠেন। সকাল সাড়ে ১০টার দিকে তারা সড়ক অবরোধ করে বিক্ষোভ করেন। পরে পুলিশ প্রশাসন ঘটনাস্থলে এসে শ্রমিকদের শান্ত করে। তাদের আশ্বাসে সাড়ে ১১টার দিকে সড়ক অবরোধ প্রত্যাহার করা হয়।’

ট্রাফিক পুলিশের হয়রানি স্থায়ীভাবে বন্ধের দাবি জানিয়ে দিলু মিয়া বলেন, ‘রেকার বাণিজ্যে আমরা অতিষ্ঠ। সঙ্গে স্লিপ বাণিজ্য চলছে।’

জানতে চাইলে সিলেট মহানগর পুলিশের অতিরিক্ত উপ-কমিশনার বিএম আশরাফ উল্লাহ তাহের বলেন, ‘ট্রাফিক পুলিশের সাথে ঝামেলার কারণে শ্রমিকরা সড়ক অবরোধ করেছিল। তারা বলছে যে, ট্রাফিক পুলিশের প্রসিকিউশন সাম্প্রতিক সময়ে অতিরিক্ত হচ্ছে, বাড়াবাড়ি হচ্ছে।’

তিনি বলেন, ‘পুলিশ শান্তিপূর্ণ অবস্থা ধরে রাখতে চায়। কোনো ঝামেলা হোক, এটা চায় না পুলিশ।’

পরিবহন শ্রমিকদের অভিযোগের বিষয়টি আলোচনার ভিত্তিতে সমাধান করা হবে বলেও জানিয়েছেন তিনি।