• ডিসেম্বর ৩০, ২০২২
  • খেলাধুলা
  • 42
ফুটবলের কিংবদন্তি পেলে আর নেই

স্পোর্টস ডেস্কঃ ১৯৫৮ সালে বিশ্বকাপের অন্যতম ফেভারিট ছিল ব্রাজিল। সেসময়ের জিতো, গারিঞ্চা, দিদি, ভাভাদের দিয়ে সাজানো তারকাবহুল দলে ১৭ বছর বয়সী পেলের জায়গা পাওয়াটাই ছিল বিরাট চমক। তাই শুরুতে সাইডবেঞ্চে কাটাতে হয় ফুটবলের কালো মানিককে। কিন্তু সোভিয়েত ইউনিয়নের বিপক্ষে গ্রুপ পর্বের ম্যাচে মাজ্জেলার ইনজুরির কারণে মাঠে নামানো হয় পেলেকে। সে ম্যাচে কোনো গোল না পেলেও এক অ্যাসিস্টে কোচের ভরসা জেতেন মহাতারকা।

এরপর আবার কোয়ার্টারে সুযোগ মেলে তার। সে ম্যাচে রেকর্ডগড়া গোল এল তার পা থেকে। বিশ্বকাপে সর্বকনিষ্ঠ গোলদাতার একমাত্র গোলে সেমির মঞ্চে ব্রাজিল। গোল পাওয়ার পরই যেন পুরো মোড় ঘুরে গেল পেলের ক্যারিয়ারে। এরপর তিনি হয়ে উঠলেন অদম্য, অপ্রতিরোধ্য।

সেমিফাইনালে ফ্রান্সের বিপক্ষে হ্যাটট্রিক ১৭ বছর বয়সী পেলের। বিশ্বকাপের ইতিহাসে তখন সর্বকনিষ্ঠ হ্যাটট্রিকম্যান বনে গেলেন তো বটেই, ছড়ালেন বিস্ময়ও। এখানেই থামেননি পেলে, ১৭ বছর বয়সী তরুণ ফাইনালেও দুই গোল করে ব্রাজিলকে জেতালেন বিশ্বসেরার শিরোপা। রাখলেন বাবাকে দেওয়া তার সেই প্রতিশ্রুতি। স্বাভাবিকভাবেই সে বিশ্বকাপের সিলভার বল ও সিলভার বুট দুটো পুরষ্কার জেতেন পেলে। তবে যে নাম এবং সম্মান তিনি জিতেছিলেন, সেটা কোনো পুরষ্কারে পরিমাপ করা সম্ভব নয়। এরকম অনেক পুরুস্কার ও সম্মান কুঁড়িয়েছেন ফুটবলের কিংবদন্তি পেলে।

বৃহস্পতিবার সাও পাওলোর আলবার্ট আইনস্টাইন হাসপাতালে মারা গেছেন ফুটবলের কিংবদন্তি পেলে। তার ক্যারিয়ারের সেরা ম্যাচ যেখানে খেলেছেন, সেই সান্তোসের হোম ভেন্যু ভিয়া বেলমিরো স্টেডিয়ামে সোমবার ও মঙ্গলবার হবে তার শেষকৃত্য। সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে তাঁর মৃত্যুর খবর নিশ্চিত করেছেন তাঁর মেয়ে কেলি নাসিমেন্তো।

১৯৭০ সালে বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় হিসেবে ফিফা গোল্ডেন বল পুরস্কারও জেতেন তিনি। তবে বেশ কয়েকবছর ধরেই শরীর ভাল যাচ্ছে না পেলের। ২০১৫ সালে স্নায়ুর সমস্যায় মেরুদণ্ডে অস্ত্রোপচারও করা হয় তার। কিডনি ও প্রস্টেটের সমস্যা নিয়ে একাধিকবার হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন ফুটবলের কিংবদন্তি। ২০১৭ সালের ডিসেম্বরে মস্কোয় রাশিয়া বিশ্বকাপের এক অনুষ্ঠানে হুইলচেয়ারে বসা অবস্থাতেই দেখা গিয়েছিল তাকে।

ফুটবল ইতিহাসে একমাত্র ফুটবলার হিসেবে তিনটি বিশ্বকাপ জয় করেন পেলে। ১৯৫৮ সালে যখন ব্রাজিল বিশ্বকাপ জয় করে, তখন পেলের বয়স ছিল কেবল ১৭ বছর। এরপর ১৯৬২ এবং ১৯৭০ সালেও বিশ্বকাপ জয় করেন তিনি। তিনি ২০০০ সালে ফিফার সেঞ্চুরির সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন।

ইতিহাসে একমাত্র ফুটবলার হিসেবে তিনটি বিশ্বকাপ জিতেছেন পেলে। তার একুশ বছরের ক্যারিয়ারে ১ হাজার ৩৬৩টি ম্যাচে ১ হাজার ২৮১টি গোল করেছেন। এর মধ্যে ব্রাজিলের হয়ে ৯১ ম্যাচে করেন ৭৭টি গোল।

 

  •  
  •  
  •  
  •  
  •  
  •