• মার্চ ২, ২০২৩
  • শিক্ষাঙ্গন
  • 205
অবকাঠামো উন্নয়নে বড় চ্যালেঞ্জ বৈশ্বিক বিপর্যয়: পররাষ্ট্রমন্ত্রী

শাবি প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ একটি উন্নয়নশীল দেশ। এদেশ প্রতিনিয়ত প্রাকৃতিক দুর্যোগ ও অপ্রত্যাশিত বৈশ্বিক দুর্যোগের সম্মুখীন হতে যাচ্ছে।

বৈশ্বিক বিপর্যয় আমাদের দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়নে বড় চ্যালেঞ্জ।

বৃহস্পতিবার (২ মার্চ) শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়ে পুর ও পরিবেশ কৌশল বিভাগের রজতজয়ন্তী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে যোগ দিয়ে এসব কথা বলেন পররাষ্ট্রমন্ত্রী ড. এ কে আব্দুল মোমেন।

অনুষ্ঠানে তিনি ভার্চুয়ালি অংশ নেন।

পররাষ্টমন্ত্রী আরও বলেন, চ্যালেঞ্জগুলো মোকাবিলায় আমাদের এমন ইঞ্জিনিয়ার প্রয়োজন, যারা প্রাকৃতিক দুর্যোগ রোধ ও টেকসই উন্নয়নে অবদান রাখতে পারবে।

যা দেশের অবকাঠামোগত উন্নয়ন ডিজাইন ও স্থাপনা নির্মাণ করতে ভূমিকা রাখতে পারে।

এ সময় শাবিপ্রবির সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের শিক্ষার্থীদের কথা উল্লেখ করে পররাষ্ট্রমন্ত্রী বলেন, দেশের অন্যতম সেরা বিদ্যাপীঠ শাহজালাল বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি বিশ্ববিদ্যালয়। এ বিশ্ববিদ্যালয়ের সিভিল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ দেশের চাহিদার আলোকে দক্ষ ও কর্মঠ ইঞ্জিনিয়ার তৈরিতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখছে। এ বিভাগের গ্রাজুয়েটরা বাংলাদেশের মেগা প্রকল্পসহ বৈশ্বিক উন্নয়নে তাদের দক্ষতার পরিচয় দিচ্ছে। শুনেছি এই বিভাগ এক্সিড-২০২৩ নামক একটি ন্যাশনাল প্রতিযোগিতার আয়োজন করেছে। আশাকরি তরুণ শিক্ষার্থীদের জন্য দক্ষতা বৃদ্ধিতে এ অনুষ্ঠান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখবে।

তিন দিনব্যাপী এ অনুষ্ঠানের উদ্বোধনী পর্বে শাবিপ্রবির উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদের সভাপতিত্বে অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ফলিত বিজ্ঞান ও প্রযুক্তি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. মো. আরিফুল ইসলাম, ইউনিভার্সিটি অব এশিয়া প্যাসিফিকের ইমেরিটাস অধ্যাপক ড. শামীম জেড. বোসুনিয়া।

সভাপতির বক্তব্যে উপাচার্য অধ্যাপক ফরিদ উদ্দিন আহমেদ বলেন, সরকার পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় প্রতিষ্ঠিত করার একটাই উদ্দেশ্য স্মার্ট বাংলাদেশ গড়া। দেশকে ডিজিটাল বাংলাদেশ থেকে স্মার্ট বাংলাদেশে রূপান্তরের উদ্যোগ নিয়েছে সরকার। এ পরিকল্পনাকে বাস্তবায়ন করবে বিশ্ববিদ্যালয় শিক্ষক ও গ্রাজুয়েটরা। সেজন্য শিক্ষার্থীদের পড়াশোনার পাশাপাশি বিশ্ববিদ্যালয়ের সুযোগ-সুবিধাগুলোকে কাজে লাগাতে হবে। শিক্ষার পাশাপাশি সাংস্কৃতিক কর্মকাণ্ডে অংশ নিয়ে নিজেদের পূর্ণাঙ্গ মানুষ হিসেবে প্রতিষ্ঠিত করতে হবে। আমরা তোমাদের মানুষ হিসেবে গড়ে তুলতে চাই, কারণ মনুষ্যত্ব না থাকলে অর্জিত শিক্ষাকে কাজে লাগানো যাবে না।

এছাড়াও পুর ও পরিবেশ কৌশল বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. আজিজুল হক, অধ্যাপক ড. মো. শহিদুর রহমান, অধ্যাপক ড. মো. ইমরান কবীর, অধ্যাপক ড. বিজিত কুমার বণিক, অধ্যাপক ড. মো. বশিরুল হক, অধ্যাপক ড. গোলাম মো. মুন্না, সহযোগী অধ্যাপক ড. আহমেদ হাসান নুরীসহ বিভাগের সকল শিক্ষক, সাবেক ও বর্তমান শিক্ষার্থীরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।