• মে ৩, ২০২৩
  • রাজনীতি
  • 188
প্রধানমন্ত্রীর যুক্তরাষ্ট্র সফরে কোনো অর্জন নেই: ফখরুল

নিউজ ডেস্কঃ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এবারের যুক্তরাষ্ট্র সফরে কোনো অর্জন নেই বলে দাবি করেছেন বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর। তিনি বলেছেন, ‘প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে অ্যাচিভমেন্ট (অর্জন) ইজ জিরো।’

বুধবার লিবারেল ডেমোক্রেটিক পার্টি (এলডিপি) চেয়ারম্যান অলি আহমদের সঙ্গে বিএনপি চেয়ারপারসনের কার্যালয়ে বৈঠকের পর সাংবাদিকদের প্রশ্নের জবাবে তিনি এ মন্তব্য করেন।

বিএনপি মহাসচিব বলেন, ‘সরকার প্রথম থেকেই মিথ্যা কথা বলে আসছে, মিথ্যা প্রচার চালিয়ে জনগণকে বিভ্রান্ত করার চেষ্টা করছে। তাদের পায়ের নিচে মাটি নেই। তাই এ ধরনের মিথ্যা প্রচার করে তারা বলতে চায় যে, এই সফরটা অত্যন্ত সফল হয়েছে।

‘বলা হচ্ছে- আইএমএফ বলেছে যে তার (শেখ হাসিনা) নেতৃত্বে …। এটা ডাহা মিথ্যা কথা। আমরা ইতোমধ্যে কাগজপত্র দেখেছি। তারা ইতোমধ্যে একটা স্টেটমেন্ট পর্যন্ত দিয়ে বলেছে- আমরা (আইএমএফ) এ কথা বলিনি; শুধু তার সঙ্গে মিটিংয়ের কথা বলেছি।

‘একইভাবে বিশ্বব্যাংকের এই ঋণ পূর্বনির্ধারিত। আগেই কথা হয়েছে যে তারা এই ঋণ দেবে। সুতরাং প্রধানমন্ত্রীর এই সফরে অ্যাচিভমেন্ট ইজ জিরো।’

মির্জা ফখরুল বলেন, ‘মিথ্যা কথা বলে মানুষকে বেশিদিন বোকা বানিয়ে রাখা যায় না। আওয়ামী লীগ সে কাজটাই করে যাচ্ছে। এবার তারা ব্যর্থ হবে। কারণ জনগণ তাদের মিথ্যাচার বুঝে গেছে, জারিজুরি বুঝে গেছে। জনগণ তাদেরকে সরিয়ে জনগণের শাসন প্রতিষ্ঠা করবে।’

দেশের অর্থনৈতিক দুরবস্থার মধ্যে প্রধানমন্ত্রী তিনটি দেশ সফর কীভাবে দেখছেন- এমন প্রশ্নে বিএনপির এই নেতা বলেন, ‘ক্ষমতায় টিকে থাকার জন্য এসব সফর, ধানাই-পানাই করা। এসব করে কোনো লাভ হবে না। জনগণের লক্ষ্য একটাই- তাদেরকে ক্ষমতা থেকে সরতে হবে এবং নির্দলীয় নিরপেক্ষ সরকারের অধীনে নির্বাচনের মাধ্যমে জনগণের সরকার প্রতিষ্ঠা করতে হবে। গণতন্ত্র ফিরিয়ে আনতে হবে, আইনের শাসন ফিরিয়ে আনতে হবে। জনগণ যেন সত্যিকার অর্থেই একটা গণতান্ত্রিক সমাজে বাস করতে পারে সেই ব্যবস্থা করতে হবে।’

বিএনপির সঙ্গে সংলাপ করতে চাই না- ভয়েস অফ আমেরিকাকে দেয়া এক সাক্ষাৎকারে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার এমন বক্তব্যের প্রতিক্রিয়া জানতে চাইলে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘আমরা তো তাদের সঙ্গে আলোচনা করতে চাইনি। আমাদের পূর্ব অভিজ্ঞতা বিবেচনায় তো তাদের সঙ্গে আলোচনায় বসার যুক্তি থাকতে পারে না। তারা পুরোপুরিভাবে মিথ্যা কথা বলে এবং বিট্রে (বিশ্বাস ভঙ্গ) করে। বিশ্বাসঘাতকতা করে জাতির সঙ্গে। সে কারণে আন্দোলনের মধ্য দিয়েই জনগণ রাজপথে ফয়সালা করে নেবে।’

বিএনপি অগ্নিসন্ত্রাস করে- যুক্তরাষ্ট্রে প্রধানমন্ত্রীর এমন বক্তব্যের জবাবে মির্জা ফখরুল বলেন, ‘অগ্নি-সন্ত্রাসের ধারক-বাহক আওয়ামী লীগ। তারাই অগ্নি-সন্ত্রাস শুরু করেছে, তারাই এটা কনটিনিউ করে, নিজেরা করে উদোর পিণ্ডি বুধোর ঘাড়ে চাপায়।’

বৈঠক শেষে এলডিপি প্রেসিডেন্ট ড. অলি আহমদ বলেন, ‘এই আন্দোলন ক্ষমতায় যাওয়ার জন্য নয়, এই আন্দোলন মন্ত্রী হওয়ার জন্য নয়। এই আন্দোলন বাংলাদেশের ১৮ কোটি মানুষকে মুক্ত করার আন্দোলন।’

বৈঠকে আরও অংশ নেন বিএনপির স্থায়ী কমিটির সদস্য নজরুল ইসলাম খান। এতে যুগপৎ আন্দোলনের কর্মকৌশল নিয়ে আলোচনা হয় বলে দলটির সূত্র জানায়।