• মে ৮, ২০২৩
  • শীর্ষ খবর
  • 133
সিলেটে বিএনপি-জামায়াতের ৬৭ নেতাকর্মীর জামিন নামঞ্জুর

নিউজ ডেস্কঃ সিলেটে ইউএনও, পুলিশ ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের গাড়িতে হামলা ও ভাঙচুরের মামলায় বিএনপি-জামায়াতের ৬৭ নেতাকর্মীর জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানো হয়েছে।

সোমবার (৮ মে) সিলেটের জকিগঞ্জ সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতে হাজির হয়ে জামিন আবেদন করেন এ ৬৭ জন।

শুনানি শেষে বিচারক তাদের জামিন নামঞ্জুর করে কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন। জামিন নামঞ্জুরকৃতরা পুলিশের দায়েরকৃত মামলার চার্জশিটভুক্ত আসামি ছিলেন।

জামিন নামঞ্জুরকৃত আসামিরা হলেন- আব্দুল কাদির মেম্বার, মাসুদ আহমদ, কামরুল ইসলাম, আব্দুল জলিল মেম্বার, কামিল আহমদ, বাবুল আহমদ, বুরহান উদ্দিন, রায়হান আহমদ, জমির উদ্দিন, ইমন আহমদ, মো. আলাউদ্দিন, জালাল উদ্দিন, আলম আহমদ, ছয়েফ উদ্দিন, ফয়ছল মেম্বার, ময়নুল ইসলাম, পারভেজ মোশাররফ, সফি মিয়া, মিনহাজ আহমদ, ছাইফুর রহমান, এমাদ উদ্দিন, রিয়াজ উদ্দিন, কবির আহমদ, হাফিজ নাছির উদ্দিন, আলম মিয়া, আল আমিন, আব্দুল কুদ্দুস, জয়নাল আহমদ, জুবায়ের আহমদ চৌধুরী, মাহতাব আহমদ, সিপার আহমদ, মুরশেদ আলম, মো. মুমিন মিয়া, মনির উদ্দিন, জোবায়ের আহমদ, ছয়ফুল ইসলাম, জাহাঙ্গীর আলম জাকির, সায়াদ আলী, আব্দুল হান্নান হান্না, শাহিদ আহমদ, জাকারিয়া আহমদ জুয়েল, রাবেল আহমদ, মিজান আহমদ, মাহতাব হোসেন, মায়রুফ আহমদ, খলকু মিয়া, আবু সুফিয়ান, আলীম উদ্দিন, আব্দুল জলিল জলু, মাজহারুল ইসলাম সেলিম, কাওসার আহমদ, নজরুল ইসলাম নমিক, শাহিদ আহমদ, জামাল উদ্দিন ও কামরুল ইসলামসহ ৬৭ জন।

মামলার এজাহার সূত্রে জানা যায়, ২০২১ সালের ১৪ অক্টোবর কুমিল্লার একটি পূজামণ্ডপে পবিত্র কোরআন শরিফ রাখাকে কেন্দ্র করে জকিগঞ্জের কালিগঞ্জে পুলিশের ওপর আক্রমণ করা হয়।

হামলাকারীরা ইউএনও, অতিরিক্ত পুলিশ সুপার, ওসি ও উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যানের গাড়ি ভাঙচুর করে। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ ফাঁকা গুলি ও টিয়ারশেল ছুড়ে। সংঘর্ষে পুলিশ-জনতাসহ অন্তত ৩৫/৪০ জন আহত হন।

এ ঘটনায় পুলিশ বাদী হয়ে ৩/৪শ’ জনকে অজ্ঞাত আসামি করে থানায় মামলা দায়ের করে। কিছুদিন আগে ১৭৪ জনকে অভিযুক্ত করে আলোচিত এ মামলার চার্জশিট আদালতে দাখিল করেন তদন্তকারী কর্মকর্তা জকিগঞ্জ থানার উপ-পরিদর্শক (এসআই) জহিরুল ইসলাম। এরপর আদালত আসামিদের নামে গ্রেপ্তারি পরোয়ানা জারি করেন।

গত বৃহস্পতিবার একই মামলায় ২৯ জন আদালতে উপস্থিত হয়ে জামিন আবেদন করলে জামিন নামঞ্জুর করে জেলহাজতে পাঠানো হয়। এবার একই মামলায় কারাগারে গেলেন ৬৭ জন