• মে ১৩, ২০২৩
  • শীর্ষ খবর
  • 168
সিসিক নির্বাচন: শহর রক্ষাবাঁধ নির্মাণের আশ্বাস আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীর

নিউজ ডেস্কঃ অপরিকল্পিত উন্নয়নে অল্প বৃষ্টিতেই বানের পানিতে নগরবাসীকে হাবুডুবু খেতে হয় বলে মন্তব্য করেছেন সিলেট সিটি করপোরেশন (সিসিক) নির্বাচনে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়র প্রার্থী আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী।

নির্বাচিত হলে তিনি সিলেট নগরকে পরিকল্পিতভাবে গড়ে তুলবেন এবং সরকারের উচ্চ পর্যায়ে ও দেশসেরা নগরবিদদের পরামর্শ নিয়ে শহররক্ষা বাঁধ নির্মাণের আশ্বাস দিয়েছেন।

নগরের ২২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগ, অঙ্গ ও সহযোগী সংগঠনগুলোর সঙ্গে অনুষ্ঠিত মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি এসব কথা বলেন।

সেই সঙ্গে মশার প্রজনন কেন্দ্রগুলো ধ্বংসের কোনো কার্যকর উদ্যোগই নেওয়া হয়নি অভিযোগ তুলে তিনি বলেন, নগরবাসীর যন্ত্রণার আরেক নাম মশা।

আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী আরও বলেন, নগরীর ছড়া খাল উদ্ধার করা ও সুরমা নদী খনন করারও প্রয়োজনীয় উদ্যোগ গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হবে। মশার প্রজনন কেন্দ্রগুলো স্থায়ীভাবে ধ্বংসের জন্য নিয়মিত ওষুধ প্রয়োগ, ময়লা আবর্জনা অপসারণ করে একটা স্বাস্থ্যকর নগরী হিসেবে গড়ে তুলতে সবকিছুই করবেন তিনি। অপরিকল্পিত উন্নয়ন যন্ত্রণায় যাতে নগরবাসীকে ভুগতে না হয়, সে ব্যাপারে সচেতন থেকে প্রকল্প গ্রহণ ও বাস্তবায়ন করা হবে। আর সিসিকের উন্নয়নে সরকার আন্তরিকভাবে কাজ করলেও জনগণ কাঙ্খিত উন্নয়ন থেকে বঞ্চিত। এ অবস্থার অবসান ঘটাতে হলে সবাইকে নৌকার পক্ষে আন্তরিকভাবে কাজ করতে হবে।

দলমত নির্বিশেষ তিনি সবাইকে জনগণের সামনে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার উন্নয়ন তৎপরতা তুলে ধরার আহ্বান জানান।

সভায় সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সভাপতি বীর মুক্তিযোদ্ধা মাসুক উদ্দিন আহমদ বলেন, বঙ্গবন্ধুকন্যা যা বলেন, তা তিনি করে দেখান। ডিজিটিটাল বাংলাদেশ একসময় স্বপ্ন ছিলো এখন বাস্তবে ডিজিটাল যুগে আমরা প্রবেশ করেছি। আগামী দিনে স্মার্ট বাংলাদেশের স্বপ্নও পুরণ হবে। আর সেই স্মার্ট বাংলাদেশের প্রথম স্মার্ট নগরী সিলেটকে গড়ে তুলতে আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীকে নৌকা মার্কায় ভোট দিয়ে জয়যুক্ত করার আহ্বান জানান।

২২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি ডা. আব্দুল ওয়াহিদের সভাপতিত্বে ও সাধারণ সম্পাদক ফজলে রাব্বি মাসুমের ও যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক কামাল উদ্দিনের যৌথ পরিচালনায় মতবিনিময় সভায় সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি শফিকুর রহমান চৌধুরী বলেন, ঐক্যবদ্ধ আওয়ামী লীগকে কেউ হারাতে পারবে না। যে যাই বলুক না কেন, ২১ জুন ভোটের মাধ্যমে আওয়ামী লীগের জনপ্রিয়তা প্রমাণ হবে।

তিনি বলেন, সারাদেশে বর্তমান সরকারের আমলে ব্যাপক উন্নয়ন হয়েছে। সে তুলনায় এখনো সিলেট সিটি অনেক পিছিয়ে রয়েছে। এজন্য আমাদের নৌকার প্রার্থীকে বিজয়ী করে আনোয়ারুজ্জামানকে মেয়রের চেয়ারে বসানোর আহ্বান জানাই। তবেই কাঙ্খিত উন্নয়ন হবে। আর আওয়ামী লীগ ঐক্যবদ্ধ থাকলে নৌকাকে পরাজিত করার সাধ্য কারো নেই।

সিলেট মহানগর আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক অধ্যাপক জাকির হোসেন বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে দেশ আজ এগিয়ে যাচ্ছে। আমরা পেছনের থাকার কোনো সুযোগ নেই। ২১শে জুন সিসিক নির্বাচনে আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরীকে নৌকা প্রতিকে ভোট দিয়ে জননেত্রী শেখ হাসিনাকে বিজয় উপহার দেবো। তবেই আমরা সিলেটের যতো দাবি-দাওয়া আছে আদায় করতে পারবো।

মতবিনিময় সভায় বক্তব্য রাখেন- সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সহ সভাপতি অ্যাডভোকেট নিজামউদ্দিন, মহানগরের সাংগঠনিক সম্পাদক কাউন্সিলার অ্যাডভোকেট ছালেহ আহমদ সেলিম, জেলা আওয়ামী লীগের প্রচার সম্পাদক অ্যাডভোকেট আব্বাস উদ্দিন, শিল্প ও বাণিজ্য সম্পাদক অ্যাডভোকেট ইসতিয়াক আহমদ চৌধুরী, সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য আব্দুল বারী, মহানগর আওয়ামী লীগের উপদেষ্টা হাজি মো. এনাম উদ্দিন, গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি লুৎফুর রহমান ও সাংগঠনিক সম্পাদক সৈয়দ হাসিন আহমদ মিন্টু, ২২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি শফিকুল হক, সিলেট মহানগর যুবলীগের সাধারণ সম্পাদক মুশফিক জায়গিরদার, ২২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক রুহেল আহমদ রুহিন, সাংগঠনিক সম্পাদক আবুল কালাম, দপ্তর সম্পাদক রুহুল আলম, গোলাপগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সদস্য জাফরান জামিল, মহানগর শ্রমিক লীগের সহ-সভাপতি এনামুল হক লিলু, যুগ্ম-সাধারণ সম্পাদক মোশাহিদ খান, সিলেট মহানগর যুবলীগ নেতা হুমায়ুন রশিদ সুমন, ২২নং ওয়ার্ড স্বেচ্ছাসেবক লীগের সভাপতি সিদ্দিকুর রহমান, সাধারণ সম্পাদক ফুয়াদ বকশী মামুন, জেলা ছাত্রলীগ নেতা কাজী জুবায়ের আহমদ।

এসময় উপস্থিত ছিলেন সিলেট জেলা আওয়ামী লীগের সদস্য ডা. নাজিরা চৌধুরী, মহানগর আওয়ামী লীগের সদস্য রাহাত তরফদার, ইঞ্জিনিয়ার আতিকুর রহমান সোয়েদ, সিপা বেগম সুপা, ২২নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি মো. আতাউর রহমান, মো. আব্দুস শুকুর বকুল, মো. জালাল উদ্দিন, অ্যাডভোকেট নাসির উদ্দিন, মো. রফিক আহমদ, মো. এস এম ফয়ছল সাদ, সাংগঠনিক সম্পাদক মো. জয়নুল হক, মো. জাহাঙ্গীর আলম লুলু, কৃষি ও সমবায় বিষয়ক সম্পাদক মো. মাহবুব আহমদ মুক্তা, তথ্য ও গবেষণা বিষয়ক সম্পাদক অধ্যাপক মো. মুজিবুর রহমান, ত্রাণ ও সমাজকল্যাণ বিষয়ক সম্পাদক মো. মহসিন কবির দিদার, প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আবু বক্কর সিদ্দিক বাবলু, বন ও পরিবেশ বিষয়ক সম্পাদক মো. সিরাজ খান, মহিলা বিষয়ক সম্পাদক অ্যাডভোকেট মরিয়ম বেগম, যুব ও ক্রীড়া সম্পাদক রেজওয়ান আহমদ প্রমুখ।