• ডিসেম্বর ২৯, ২০২৩
  • জাতীয়
  • 77
বরিশালে আ’লীগের জনসভাস্থলে দুই প্রার্থীর সমর্থকদের সংঘর্ষ, নিহত ১

নিউজ ডেস্কঃ বরিশাল-৪ আসনে স্বতন্ত্র প্রার্থী ও দ্বৈত নাগরিকত্বের অভিযোগে প্রার্থিতা বাতিল হওয়া আওয়ামী লীগ নেত্রীর সমর্থকদের মধ্যে সংঘর্ষে একজন নিহত হয়েছে। আহত হয়েছেন আরও ১৩ জন। তাদেরকে বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

শুক্রবার দুপুরে ব‌রিশা‌লের বঙ্গবন্ধু উদ‌্যানে আওয়ামী লীগের নির্বাচনি জনসভাস্থ‌লে প্রবেশের সময় স্বতন্ত্র প্রার্থী পঙ্কজ নাথ ও ড. শাম্মীর অনুসারীদের মধ্যে এই সংঘর্ষ হয়।

নিহত সিরাজ সিকদার হিজলা উপজেলার কুড়ালিয়া গ্রামের বাসিন্দা। তার বাবার নাম কোব্বাত সিকদার। তার বয়স হয়েছিল ৫৮ বছর। দুপক্ষই তাকে নিজেদের কর্মী বলে দাবি করেছে।

মেহেন্দিগঞ্জ উপজেলা যুবলীগের সাবেক সাধারণ সম্পাদক ভুট্টো মোল্লা বলেন, ‘আমরা মিছিল নিয়ে জনসভাস্থলে ঢুকছিলাম। সেখানে আগে থেকে অবস্থান নেয়া শাম্মীর অনুসারীরা আমাদের মিছিল লক্ষ্য করে বোতল ছুড়তে শুরু করে। এ সময় দু’পক্ষের মধ্যে হাতাহাতি হয়। তখন শাম্মীর অনুসারীরা লাঠি দিয়ে পিটিয়ে সিরাজসহ ১৫ জনকে আহত করে। তাদের মধ্যে সিরাজ ঘটনাস্থলেই নিহত হন।’

ড. শাম্মীর অনুসারী হিজলা উপজেলা কৃষক লী‌গের সাধারণ সম্পাদক সৈয়দ মঞ্জুর মোর্শেদ পাল্টা অভিযোগ করে বলেন, ‘আমরা আগে থেকেই জনসভাস্থলে ছিলাম। পঙ্কজ নাথের অনুসারীরা জনসভাস্থলে প্রবেশ করেই মারামারি শুরু করে। দু’পক্ষের মধ্যে সংঘর্ষ শুরু হলে একজন নিচে পড়ে গিয়ে অসুস্থ হয়ে পড়ে। তাকে উদ্ধার করে হাসপাতালে নেয়ার পর চিকিৎসক মৃত ঘোষণা করেন।’

সিরাজ সিকদার ড. শাম্মীর অনুসারী ছিলেন বলে দাবি করেন মঞ্জুর মোর্শেদ।

বরিশাল কোতোয়ালি মডেল থানার ওসি আরিচুল হক বলেন, ‘সিরাজকে যে ব্যক্তি হাসপাতালে নিয়ে আসেন তিনি জানিয়েছেন যে জনসভার মাঠে অসুস্থ হয়ে পড়েন। হাসপাতালে আনার পর দায়িত্বরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

‘প্রাথমিকভাবে ধারণা করা হচ্ছে, ওই ব্যক্তি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা গেছেন। বিষয়টি তদন্ত করে ব্যবস্থা নেয়া হবে।’

বরিশাল শের-ই-বাংলা মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালের জরুরি বিভাগের চিকিৎসক কবিরউদ্দিন বলেন, ‘একজনকে এখানে আনা হয়েছে। প্রাথমিকভাবে ধারণা করছি হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে তার মৃত্যু হয়েছে। তবু সন্দেহের কারণে আমরা মরদেহ মর্গে পাঠিয়েছি। ময়না তদন্ত প্রতিবেদন পেলে মৃত্যুর প্রকৃত কারণ জানা যাবে।

ডা. কবির জানান, দু’পক্ষের সংঘর্ষে আহত হয়ে হাসপাতালে ১৩ জন ভর্তি হয়েছেন। তাদের চিকিৎসা দেয়া হচ্ছে। সূত্র: নিউজবাংলা