• ফেব্রুয়ারি ১২, ২০২৪
  • রাজনীতি
  • 86
১০৫ বার তদন্ত প্রতিবেদন পেছানো নতুন বিশ্বরেকর্ড আ.লীগের : রিজভী

নিউজ ডেস্কঃ দুর্নীতি-দুঃশাসন-দুর্বৃত্তায়নে আওয়ামী লীগের বহুমাত্রিক বিশ্বরেকর্ডের মাঝে, সাংবাদিক দম্পতি সাগর-রুনী হত্যা মামলায় ১০৫ বার তদন্ত প্রতিবেদন পেছানোও দৃষ্টান্তহীন আরেকটি নতুন বিশ্বরেকর্ড বলে মন্তব্য করেছেন বিএনপির সিনিয়র যুগ্ম মহাসচিব রুহুল কবির রিজভী।

সোমবার (১২ ফেব্রুয়ারি) সকালে রাজধানীর নয়াপল্টনে বিএনপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ মন্তব্য করেন তিনি।

রিজভী বলেন, ‘সাংবাদিক দম্পতি সাগর সরওয়ার ও মেহেরুন রুনী হত্যাকাণ্ডের এক যুগ পূর্ণ হলো গতকাল। এটি অত্যন্ত পীড়াদায়ক যে, এক যুগেও এই বহুল আলোচিত হত্যাকাণ্ডের প্রকৃত তদন্ত করেনি আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনী। রহস্যজনকভাবে এড়িয়ে যাওয়া হচ্ছে প্রকৃত তদন্তের বিষয়টি। হত্যার পর সাগর-রুনীর খুনিরা বাসা থেকে ল্যাপটপ নিয়ে যায়, অথচ সেই ল্যাপটপ ১২ বছরেও উদ্ধার হয়নি। ঠিক যেমন উন্মোচন হয়নি, সেই ল্যাপটপে কী গোপনীয় বিষয় ছিল, তার কোনো তথ্য।’

তিনি বলেন, ‘রাজধানী ঢাকাতেই নিজ বাসায় সাংবাদিক দম্পতির খুনের ঘটনার পর, তৎকালীন স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বলেছিলেন, ৪৮ ঘণ্টার মধ্যে খুনিদের গ্রেপ্তার করা হবে। দুই দিন পর পুলিশের আইজি বলেছিলেন, তদন্তের ইতিবাচক ও প্রণিধানযোগ্য অগ্রগতি হয়েছে। অবিশ্বাস্য বাস্তবতা হলো, মামলাটির তদন্ত প্রতিবেদন আদালতে জমা দেওয়ার তারিখ এখন পর্যন্ত ১০৫ বার পিছিয়েছে। গত ১২ বছরে নৃশংস এই হত্যাকাণ্ডের বিচার না হওয়ার কারণ হয়তো এই যে, সাগর-রুনী অনুসন্ধানী সাংবাদিকতায় এমন কিছু তথ্য-প্রমাণ উঠে এসেছিল এবং তারা এমন কিছু বিষয় জেনে ফেলেছিলেন, যা ক্ষমতাসীনদের জন্য অত্যন্ত স্পর্শকাতর ও হুমকিস্বরূপ।’

রুহুল কবির রিজভী বলেন, ‘যে বিদ্যুৎ ও জ্বালানি খাত ছিল সাগর-রুনীর সাংবাদিকতার অন্যতম বিষয়, যে খাত থেকে রাষ্ট্রীয় মদদে লাখ-লাখ কোটি টাকার দুর্নীতি হয়েছে। সেই খাতের লুটপাট তথা নেপথ্যেও কুশীলবদের সঙ্গে এ হত্যা ও বিচারহীনতার সম্পর্ক থাকা অস্বাভাবিক নয়।’

তিনি বলেন, ‘আইন ও সালিশ কেন্দ্র ২০২২ সালে জানায়, দেশজুড়ে প্রায়ই হত্যা, গুম, খুন ও অপহরণসহ সাংবাদিক নির্যাতনের ঘটনা ঘটছে এবং ১০ বছরে এ ধরনের ঘটনার শিকার হয়েছেন ৩০ সাংবাদিক, যার বিচার আজও হয়নি। গত ১৫ বছরে সাংবাদিক হয়রানি ও নির্যাতনের যে ৪ হাজারটিরও বেশি ঘটনা ঘটেছে, এর প্রায় প্রতিটির সঙ্গে আওয়ামী লীগের বিভিন্ন পর্যায়ের টেন্ডারবাজ, তদবিরবাজ ও দুর্নীতিবাজ নেতা-কর্মীরা জড়িত বলে প্রতীয়মান।’

বিএনপির এই মুখপাত্র জানান, গণমাধ্যমের তথ্যমতে এই সরকারের আমলে ৫৯ জন সাংবাদিক হত্যা হয়েছে এবং ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে ২৫০ এর অধিক সাংবাদিক চরম নির্যাতনের শিকার হয়েছেন। গত বছরের ২৮ অক্টোবর বিএনপির শান্তিপূর্ণ মহাসমাবেশ পুলিশ পণ্ড করতে তাদের ছোড়া টিয়ার শেলের আঘাতে সাংবাদিক রফিক ভূঁইয়া নিহত হয়। অথচ নিহত রফিক ভূঁইয়ার মৃত্যুকে স্বাভাবিক মৃত্যু হিসেবে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে ঘোষণা করতে বাধ্য করেছে সরকার। সাংবাদিকদের পেশাগত দায়িত্ব পালনের অপরাধে পরিকল্পিতভাবে খুন করছে গণবিরোধী সরকার। এসব খুনের ঘটনায় ন্যায়বিচার থেকে বছরের পর বছর ধরে বঞ্চিত হচ্ছে প্রতিটি ভুক্তভোগী পরিবার।

তিনি বলেন, ‘আসামিদের দাপটে তারা অসহায়, কারণ অধিকাংশ ক্ষেত্রে এই সন্ত্রাসীরা আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে যুক্ত। সাংবাদিক নির্যাতন করলে, এমনকি হত্যা করলেও যে কোনো শান্তি হয় না, ফ্যাসিস্ট সরকার এটি প্রতিষ্ঠিত করেছে। গণমাধ্যমের কণ্ঠস্বর রোধে তারা মানবাধিকার লঙ্ঘনের মাধ্যমে প্রয়োগ করছে ডিজিটাল কিংবা সাইবার নিরাপত্তা আইনের মতো কালো আইন। সাংবাদিক নির্যাতনের জন্য যারা প্রত্যক্ষ ও পরোক্ষভাবে দায়ী তারা প্রায় সবাই আওয়ামী লীগের রাজনীতি বা প্রভাবশালী মহলের সঙ্গে সংশ্লিষ্ট বলেই বিচারের আওতামুক্ত থাকে, আওয়ামী আইন ও বিচার এদের স্পর্শ করতে পারে না। এভাবেই দেশে তৈরি করা হয়েছে এক নৈরাজ্যময় ভীতিকর পরিবেশ।’

রিজভী আরও বলেন, ‘সাগর-রুনীর হত্যাকাণ্ডের এক যুগ আজ পেরিয়ে গেল। অথচ আজও তদন্ত প্রতিবেদন দেওয়া হলো না, খুনিদের ধরা হলো না, বিচারের ন্যূনতম উদ্যোগ নেওয়া হলো না। বিএনপির পক্ষ থেকে, আমরা এই স্বেচ্ছাচারী রহস্য উন্মোচনের দাবি জানাই, সাগর-রুনী হত্যার বিচার চাই। আমরা চাই, প্রতিটি সাংবাদিকের নিরাপত্তা, তাদের পেশাগত স্বাধীনতা। চলমান শান্তিপূর্ণ আন্দোলনের অনিবার্য বিজয়ের মাধ্যমে স্থাপিত গণতান্ত্রিক বাংলাদেশে সাগর-রুনী হত্যার সুষ্ঠু তদন্ত ও ন্যায়বিচারের মাধ্যমে আমরা সাংবাদিকদের নিরাপত্তা ও গণমাধ্যমের স্বাধীনতা নিশ্চিত করব, ইনশাআল্লাহ।’

এ সময় উপস্থিত ছিলেন সাংবাদিক নেতা সৈয়দ আবদাল আহমেদ, কাদের গণি চৌধুরী, মহিউদ্দিন আহমেদ প্রমুখ।