• মার্চ ৩০, ২০২৪
  • শীর্ষ খবর
  • 15
সুনামগঞ্জে হাওরে ‘দায়সারা’ বেড়িবাঁধ

সুনামগঞ্জ প্রতিনিধি: সুনামগঞ্জের শষ্যভান্ডার হিসাবে খ্যাত জগন্নাথপুর উপজেলার বৃহৎ নলুয়া ও মই হাওরের বেড়িবাঁধ সংস্কার ও নির্মাণ কাজে ব্যাপক অনিয়মের অভিযোগ উঠেছে। বিগত দিনের মতো এবার ও সরকারী দলের নেতাকর্মী দের দিয়ে প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটি গঠন করে বেড়িবাঁধের সংস্কার কাজ দায়সারাভাবে করা হচ্ছে। পাউবো ও পিআইসির মধ্যে ভাগবাটোয়ারা করে এবারও মোটা অংকের টাকা লুটপাট করা হচ্ছে বলে অভিযোগ উঠেছে। পর্যবেক্ষণে দেখা গেছে, সরকারের নীতিমালা অনুযায়ী বাঁধ এর কাজ করা হয়নি। বাধের সঠিক উচ্চতা দেওয়া হয়নি। পুরাতন বাঁধের কাছে থেকে মাটি তুলে নতুন বাঁধ করা হচ্ছে। অনেক স্থানে পূর্বের পুরাতন বাঁধের মাটি খুড়ে দায়সারাভাবে নতুন বাধ করা হচ্ছে।

প্রতিটি বাঁধ এ প্রাক্কলনের সার্বিক তথ্য সম্বলিত সাইনবোর্ড সাঁটানো থাকার কথা থাকলেও কোথাও একটি সাইনবোর্ড ও চোখে পড়েনি। জগন্নাথপুরের দায়িত্ব প্রাপ্ত পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ সহকারী প্রকৌশলী সবুজ কুমার শীলের বিরুদ্ধে রয়েছে নানা অভিযোগ। অভিযোগ রয়েছে পিআইসির সাথে আঁতাতের ফলে হাওরে সঠিক উচ্চতার বেড়িবাঁধ হয়নি। দায়সারাভাবে কাজ করে মোটা অংকের টাকা লুটপাটের অভিযোগ রয়েছে স্থানীয় পাউবোর অসাধু কর্মকর্তা ও পিআইসির মধ্যে।

সরেজমিনে নলুয়া হাওর পরিদর্শন-কালে দেখা যায়, হাওরের ৯ নম্বর বাঁধ প্রকল্পের ডুমাইখালী থেকে টংগর পর্যন্ত বাঁধের স্থানে পর্যাপ্ত মাটি পড়েনি। খোঁজ নিয়ে জানা যায়, ৮১০ মিটার এই বাঁধের জন্য ২০ লাখ ২১ হাজার টাকা বরাদ্দ প্রদান করা হয়। প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির সভাপতি হিসেবে দায়িত্ব পালন করছেন চিলাউড়া হলদিপুর ইউনিয়ন পরিষদের সদস্য আওয়ামী লীগ নেতা রুবেল মিয়া।

১২, ১৩ ও ১৪ নম্বর প্রকল্পে প্রাক্কলন অনুযায়ী কাজ হয়নি বলে স্থানীয় কৃষকরা অভিযোগ করেছেন। নলুয়ার হাওরের পশ্চিম প্রান্তের গাদিয়ালা থেকে বেতাউকা সুইচ গেইট পর্যন্ত তিনটি প্রকল্পের প্রায় ১৬ শ মিটার কাজের জন্য প্রায় ৬০ লাখ টাকা বরাদ্ধ দেওয়া হয়। এ তিনটি প্রকল্পের সভাপতি হচ্ছেন আওয়ামীলীগ নেতা জুয়েল মিয়া।বিগত দিনের মতো এবারও একাই তিন প্রকল্পের ৬০ লাখ টাকার কাজ ভাগিয়ে নেন ছিলাউরা হলদিপুর ইউনিয়ন আওয়ামীলীগের সাধারণ সম্পাদক জুয়েল মিয়া। সরেজমিন গিয়ে দেখা যায় ওই প্রকল্পের পুরাতন বাঁধ এ নাম মাত্র মাটি ফেলা হয়েছে।

হাওর বাচাও আন্দোলনের সাংগঠনিক সম্পাদক ভূরাখালী গ্রামের অধিবাসী সিদ্দিক আহমদ বলেন, আমার গ্রামের আশপাশেই বেড়িবাঁধের অবস্থান। পুরাতন বাঁধ এর কাছ থেকে মাটি খুড়ে নামমাত্র মাটি ফেলা হয়েছে। একটা সিন্ডিকেট প্রতি বছরই বাঁধ নিয়ে মৌসুমি বাণিজ্যে মেতে ওঠে। এবারও একিই অবস্থা। পাউবোর সাথে যোগসাজশে এবারও সরকারী টাকার লুটপাট চলছে। আওয়ামীলীগ নেতা জুয়েল মিয়া এবার ও ৬০ লাখ টাকার তিনটি প্রকল্প ভাগিয়ে নিয়েছেন।

জানায়ায়, জগন্নাথপুর উপজেলায় এবার ৩৩টি প্রকল্প বাস্তবায়ন কমিটির মাধ্যমে হাওরের ফসল রক্ষা বাঁধ নির্মাণ ও সংস্কার কাজ করা হচ্ছে। বরাদ্দ পাওয়া গেছে ৫ কোটি টাকা। নিয়ম অনুযায়ী ১৫ ডিসেম্বর কাজ শুরু করে ২৮ ফেব্রুয়ারির মধ্যে কাজ শেষ করার কথা থাকলেও ৭ই মার্চ পর্যন্ত ২য় দফা সময় বাড়ানো হলেও এখন পর্যন্ত সম্পূর্ণ কাজ করা হয়নি।

হাওর বাচাও আন্দোলনের সভাপতি কলকলিয়া ইউনিয়নের সাবেক চেয়ারম্যান সিরাজুল ইসলাম বলেন, হাওরের বেড়িবাঁধের জন্য সরকার ৫ কোটি টাকা বরাদ্ধ দিলেও কাজ হয়েছে নিম্নমানের। প্রাক্কলন অনুযায়ী কাজ হয়নি বাধের উচ্চতা হয়নি। পুরাতন বাধ কেটে নতুন বাধ করা হয়েছে দায়সারাভাবে। হাওরে অকাল বন্যার আশঙ্কা রয়েছে। অনেক প্রকল্পের কাজে নানা অনিয়ম রয়েছে । দায়সারাভাবে নিম্নমানের বাধ নির্মাণ করে মোটা অংকের টাকা লুটপাট করা হচ্ছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ সহকারী প্রকৌশলী সবুজ কান্তি শীল জানান, হাওরের বেড়িবাঁধের কাজ শতভাগ সম্পন্ন হয়েছে। তিনি জানান নলুয়া ও মই হাওরের ২২ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ নির্মাণ ও সংস্কার কাজের জন্য সরকার থেকে প্রায় ৫কোটি টাকা বরাদ্ধ দেওয়া হয়। এখানে লুটপাটের অভিযোগ সঠিক নয়।

জগন্নাথপুরের ইউএনও আল বশিরুল ইসলাম বলেন,বেড়িবাঁধের সম্পূর্ণ কাজ সম্পন্ন করা হয়েছে। ১৫ ডিসেম্বর কাজ শুরু করে ২৮ মার্চ কাজ সম্পন্ন হয়। আমরা হাওরের বেড়িবাঁধের রক্ষণ বেক্ষনে সার্বক্ষণিক নজর রাখছি।

উল্লেখ্য, জগন্নাথপুর উপজেলার বৃহৎ নলুয়ার হাওরে প্রায় ২০ হাজার হেক্টর ও মই হাওরে প্রায় ৫ হাজার হেক্টর বোর ফসল রয়েছে। উপজেলায় ছোটবড় ১৩টি হাওর রয়েছে।