• জুন ১৮, ২০২৪
  • লিড নিউস
  • 19
২০ দিনের ব্যবধানে সিলেটে আবারও বন্যা, বিপৎসীমার উপরে ৪ নদীর পানি

নিউজ ডেস্ক: ২০ দিনের ব্যবধানে সিলেটে আবারও বন্যা পরিস্থিতি দেখা দিয়েছে। সিলেটে সাত উপজেলার চার নদীর পানি ছয় পয়েন্টে বিপৎসীমার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সিলেট অঞ্চলে চলমান বৃষ্টি ও ভারতের চেরাপুঞ্জিতে বৃষ্টিপাত চলমান থাকায় বাড়ছে নদ-নদীর পানি। সিলেটের এই সাত উপজেলার নিম্নাঞ্চল ইতোমধ্যে প্লাবিত হয়েছে।

সিলেটের কানাইঘাট উপজেলায় সুরমা নদীর পানি কানাইঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ১৩৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। সুরমা নদীর পানি সিলেট পয়েন্টে বিপৎসীমার ২৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। জকিগঞ্জ উপজেলার কুশিয়ারা নদীর পানি অমলসিদ পয়েন্টে বিপৎসীমার ২৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। ফেঞ্চুগঞ্জ উপজেলায় কুশিয়ারা নদীর পানি ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে বিপৎসীমার ৮০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। জৈন্তাপুর উপজেলায় সারি নদীর পানি সারিঘাট পয়েন্টে বিপৎসীমার ৩৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। গোয়াইঘাট উপজেলার সারিগোয়াইন নদীর পানি গোয়াইঘাট পয়েন্ট বিপৎসীমার ২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হচ্ছে। কোম্পানীগঞ্জ উপজেলা দিয়ে প্রবাহিত ধলাই নদীর পানির কোনো বিপৎসীমা নেই। এই ধলাই নদীতে বর্তমানে ১১ দশমিক ৪৫ সেন্টিমিটার পানি রয়েছে।

সিলেট আবহাওয়া অফিসের তথ্য মতে, সিলেটে গত ২৪ ঘণ্টায় (সোমবার সকাল ৬টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৬টা পর্যন্ত) বৃষ্টিপাত হয়েছে ১৫৩ মিলিমিটার। আজ মঙ্গলবার (১৮ জুন) সকাল ৬টা থেকে সকাল ৯টা পর্যন্ত সিলেটে বৃষ্টিপাত হয়েছে ৪৪ মিলিমিটার। সকাল ৯টা থেকে বেলা ১২টা পর্যন্ত বৃষ্টিপাত হয়েছে ১২ মিলিমিটার। এর আগে গত রবিবার রাতে সিলেট বিভাগে ১৬ জনু সন্ধ্যা ৬টা থেকে পরবর্তী ৭২ ঘন্টা ভারী ও অতি ভারী বৃষ্টিপাতের সতর্কতা জারি করে সিলেট আবহাওয়া অফিস।

ভারতের আবহাওয়া বিভাগের তথ্য মতে, গত ২৪ ঘণ্টায় (সোমবার সকাল ৯টা থেকে মঙ্গলবার সকাল ৯টা পর্যন্ত) ভারতের চেরাপুঞ্জিতে ৩৯৫ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। এর আগে গত রবিবার সকাল ৯টা থেকে সোমবার সকাল ৯টা পর্যন্ত ভারতের চেরাপুঞ্জিতে ১২৬ মিলিমিটার বৃষ্টিপাত হয়েছে। যার ফলে সিলেটের সবকটি নদ-নদীর পানি দ্রুত গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে।

অপরদিকে গত বৃহস্পতিবার (১৩ জুন) ভোররাত থেকে শুরু হওয়া বজ্রসহ বৃষ্টি ও ভারতের চেরাপুঞ্জিতে বৃষ্টিপাত চলমান থাকার কারণে সিলেটের নদ-নদীর পানি বাড়তে শুরু করে। শুক্রবার দিনে বৃষ্টিপাতের পরিমাণ কিছুটা কমলেও সন্ধ্যার পর থেকে আবারও শুরু হয় বৃষ্টি। শুক্রবার রাত থেকে শনিবার বেলা ১২টা পর্যন্ত টানা বৃষ্টি ছিল। এরপর আবার বৃষ্টিপাতের পরিমান কিছুটা কমলেও রবিবার রাত থেকে আবারও টানা বৃষ্টিপাত শুরু হয়।

পানি উন্নয়ন বোর্ডের সিলেট কার্যালয়ের তথ্য মতে, বর্ষাকালে সুরমা নদীর কানাইঘাট এলাকার ডেঞ্জার লেভেল ১২.৭৫ সেন্টিমিটার। গতকাল এই পয়েন্টে নদীর পানি ছিল ১৩ দশমিক ৪৫ সেন্টিমিটার। আজ মঙ্গলবার বেলা ১২টায় এই পয়েন্টে পানি ১৪ দশমিক ১১ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে সুরমা নদীর পানি বিপৎসীমার ১৩৬ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবহিত হচ্ছে।

সিলেট পয়েন্টে সুরমা নদীর ডেঞ্জার লেভেল ১০ দশমিক ৮০ সেন্টিমিটার। গতকাল এই পয়েন্টে নদীর পানি ছিল ১০ দশমিক ৩২ সেন্টিমিটার। আজ মঙ্গলবার বেলা ১২টায় এই পয়েন্টে পানি ১১ দশমিক ০৪ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে সুরমা নদীর পানি বিপৎসীমার ২৪ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবহিত হচ্ছে।

কুশিয়ারা নদীর পানি আমলশিদ পয়েন্টে পানির ডেঞ্জার লেভেল হচ্ছে ১৫ দশমিক ৪০ সেন্টিমিটার। গতকাল এই পয়েন্টে নদীর পানি ছিল ১৫ দশমিক ২১ সেন্টিমিটার। আজ মঙ্গলবার বেলা ১২টায় এই পয়েন্টে পানি ১৫ দশমিক ৬৭ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে কুশিয়ারা নদীর পানি বিপৎসীমার ২৭ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবহিত হচ্ছে।

কুশিয়ারা নদী ফেঞ্চুগঞ্জ পয়েন্টে পানির ডেঞ্জার লেভেল ৯ দশমিক ৪৫ সেন্টিমিটার। গতকাল এই পয়েন্টে নদীর পানি ছিল ১০ দশমিক ২২ সেন্টিমিটার। আজ মঙ্গলবার বেলা ১২টায় এই পয়েন্টে পানি ১০ দশমিক ২৫ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে কুশিয়ারা নদীর পানি বিপৎসীমার ৮০ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবহিত হচ্ছে।

সারি নদীর সারিঘাট পয়েন্টে ডেঞ্জার লেভেল হলো ১২ দশমিক ৩৫ সেন্টিমিটার। গতকাল এই পয়েন্টে নদীর পানি ছিল ১২ দশমিক ১৮ সেন্টিমিটার। আজ মঙ্গলবার সকাল ৯টায় এই পয়েন্টে পানি ১২ দশমিক ৭০ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে সারি নদীর পানি বিপৎসীমার ৩৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবহিত হচ্ছে।

সারিগোয়াইন নদীর গোয়াইনঘাট পয়েন্টে ডেঞ্জার লেভেল হলো ১০ দশমিক ৮২ সেন্টিমিটার। গতকাল এই পয়েন্টে নদীর পানি ছিল ১০ দশমিক ৬৪ সেন্টিমিটার। আজ মঙ্গলবার বেলা ১২টায় এই পয়েন্টে পানি ১১ দশমিক ০৭ সেন্টিমিটার। এই পয়েন্টে সারিগোয়াইন নদীর পানি বিপৎসীমার ২৫ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবহিত হচ্ছে।

পিয়াইন (ডাউকি) নদীর জাফলং পয়েন্টে ডেঞ্জার লেভেল হলো ১৩ দশমিক ০০ সেন্টিমিটার। গতকাল এই পয়েন্টে নদীর পানি ছিল ১১ দশমিক ০৯ সেন্টিমিটার। আজ মঙ্গলবার বেলা ১২টায় এই পয়েন্টে পানি আছে ১১ দশমিক ৫৪ সেন্টিমিটার।

ধলাই নদীর পানির কোনো বিপৎসীমা নেই। গতকাল ধলাই নদীর ইসলামপুর পয়েন্টে নদীর পানি ছিল ১০ দশমিক ৯১ সেন্টিমিটার। আজ মঙ্গলবার বেলা ১২টায় এই পয়েন্টে পানি আছে ১১ দশমিক ৪৫ সেন্টিমিটার।

এ ব্যাপারে পানি উন্নয়ন বোর্ড সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলী দীপক রঞ্জন দাস  বলেন, গত ২৪ ঘণ্টায় দেশের অভ্যন্তরে উল্লেখযোগ্য বৃষ্টিপাত হয়েছে। ভারতের বৃষ্টিপাত চলমান আছে তাই উজানের ঢল বাড়ছে। আগামী ২৪ হতে ৭২ ঘণ্টায় দেশের উত্তর-পূর্বাঞ্চল ও তৎসংলগ্ন উজানে এবং আগামী ৪৮ হতে ৭২ ঘণ্টায় উত্তরাঞ্চল ও তৎসংলগ্ন উজানে ভারী থেকে অতিভারী বৃষ্টিপাতের পূর্বাভাস রয়েছে।

তিনি বলেন, আগামী ২৪ থেকে ৪৮ ঘণ্টায় উত্তর-পূর্বাঞ্চলের সুরমা-কুশিয়ারা, সারিগোয়াইন, সোমেশ্বরী, যাদুকাটা, ঝালুখালি, মনু-খোয়াই নদীসমূহের পানি সমতল সময় বিশেষে দ্রুত বৃদ্ধি পাবে। এবং কতিপয় স্থানে বিপৎসীমা অতিক্রম করেছে নদ-নদীর পানি। এর ফলে সিলেট, সুনামগঞ্জ জেলার নদীবিধৌত আরও কিছু নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়ে চলমান বন্যা পরিস্থিতির অবনতি হতে পারে এবং মৌলভীবাজার জেলার কতিপয় নিম্নাঞ্চলে স্বল্পমেয়াদী বন্যা পরিস্থিতির সৃষ্টি হতে পারে। সবাইকে বন্যা মোকাবেলায় বাড়তি সর্তক থাকতে হবে।